আধিপত্য বিস্তার নিয়ে বিরোধ ॥ চিহ্নিত সন্ত্রাসী রাব্বির ওপর হামলা গুরুতর অবস্থায় ঢাকায় প্রেরণ ॥ আটক ২

নিজস্ব প্রতিবেদক॥ যশোর শহরের টিবি কিনিক মোড়ে গতকাল আধিপত্য বিস্তার নিয়ে প্রতিপক্ষের হামলায় গুরুতর জখম হয়েছে চিহ্নিত সন্ত্রাসী রাব্বি। তার অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় দুপুরে তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। এ ঘটনার সাথে জড়িত দুই জনকে আটক করেছে পুলিশ। আটককৃতরা হলো, আশ্রম রোড এলাকার রং মিস্ত্রি রুহুল আমিনের ছেলে রনি ওরফে দাঁতাল রনি ও আব্দুল কাদের শেখের ছেলে আলমগীর হোসেন ওরফে বেড়ে আলী।
কোতয়ালি থানার এসআই জামাল উদ্দিন জানান, শহরের রেল স্টেশন এলাকার গাড়োয়ান পট্টির চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী আব্দুর রহিমের দুই ছেলে রনি ও রাব্বি। তারা দু’জনই এলাকার অস্ত্রধারী সন্ত্রাসী, বোমাবাজ, ছিনতাইকারি, চাঁদাবাজ ও মাদক ব্যবসায়ী। তাদের বিরুদ্ধে রয়েছে ডজন খানেক মামলা। আব্দুর রহিম ও তার স্ত্রী আছিয়া বিভিন্ন ধরণের মাদক দ্রব্য রেল স্টেশন, আশ্রম রোড, চাঁচড়া রায়পাড়া ও ষষ্ঠীতলা এলাকায় তাদের ওই অবৈধ ব্যবসার বিস্তার রয়েছে। আর তাদের দু’ ছেলে রনি ও রাব্বি প্রায়ই সময় বিভিন্ন ধরণের আগ্নেয়াস্ত্র নিয়ে এলাকায় ছিনতাই চাঁদাবাজির মত ঘটনা অহরহ ঘটিয়ে যাচ্ছে। ইতিপূর্বে রনি আশ্রম রোড এলাকার দাঁতাল রনিকে কুপিয়ে মারাত্মক আহত করে। এ ছাড়াও আকাশ নামে অপর এক যুবককে কয়েক মাস আগে বিদেশি পিস্তল দিয়ে গুলি করে। ১৮ নভেম্বর রাতে পুলিশ রনির নিয়ন্ত্রণে থাকা ৬টি তাজা বোমা উদ্ধার করে। সে ঘটনায়ও পুলিশ তাদের বিরুদ্ধে থানায় মামলা করে। এ রকম একাধিক অপকর্ম মূলক ঘটনায় এলাকাবাসী তাদের বিরুদ্ধে দিনে দিনে ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠে। বিশেষ করে তাদের দ্বারা গুলি ও ছুরিকাঘাতের ঘটনায় আহত দাঁতাল রনি ও আকাশ প্রতিপক্ষ হিসেবে ঘায়েল করতে সুযোগ খুঁজতে থাকে। সোমবার বেলা ১২টার দিকে রাব্বি টিবি কিনিক এলাকায় অবস্থান করছিল। কিন্তু পূর্ব পরিকল্পনা অনুযায়ী দাঁতাল রনি, ইয়াছিন, ইমাম হোসেন, শুভ, সাব্বির, মনিরুল ইসলাম, সোহেল ও বেড়ে আলী টিবি কিনিক মোড়ে যায়। এর পর তারা রাব্বিকে এলোপাতাড়ি ছুরিকাঘাত করে। স্থানীয় লোকজন তাকে উদ্ধার করে যশোর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করে। অবস্থার অবনতি হলে চিকিৎসকরা তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তরের পরামর্শ দিলে ওই সময়েই তাকে ঢাকায় নেয়া হয়।

শেয়ার