মণিরামপুর হরিহর নদীতে চলছে বালি উত্তোলনের মহোৎসব

Sand
নিজস্ব প্রতিবেদক, মণিরামপুর॥ মনিরামপুরের হরিহর নদীতে চলছে অবৈধ ভাবে বালু উত্তোলনের মহোৎসব। এলাকার প্রভাবশালী মহলকে ম্যানেজ করে শক্তিশালী ডেজার মেশিন লাগিয়ে একটি মহল অবৈধভাবে প্রতিনিয়ত বালি উত্তোলন করে চলেছে বলে অভিযোগ উঠেছে। এতে করে নদীর দু’ধারের বাড়ি-ঘর, ফসলী জমি, রাস্তাসহ ব্রীজ ধ্বসে নদী গর্ভে বিলীন হওয়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। এ ব্যাপারে প্রতিকার চেয়ে এলাকাবাসী বিভিন্ন দপ্তরে অভিযোগ দায়ের করেছে বলে জানাযায়। প্রশাসন একাধিকবার বালি উত্তোলন বন্ধে অভিযান চালালেও অদৃশ্য কারনে তা পুনরায় জমজমাট হয়ে উঠেছে।
জানাযায়, মণিরামপুর পৌরশহর ঘেঁেষ উপজেলার মধ্য দিয়ে প্রবাহিত হরিহর নদীর তাহেরপুর, মাঝিয়ালী, চাঁদপুর, পাতন, দেবিদাসপুর, গরীবপুর শশ্মান, মামুদকাঠি, কালারহাট সেতুর পাশেসহ কমপক্ষে ১০ টি ছোট ড্রেজিং মেশিন বসিয়ে দীর্ঘদিন যাবত বালি উত্তোলন করছে একটি প্রভাবশালী মহল। এতে নদীর দু’ধারের ফসলী জমি, বসত বাড়ি, রাস্তা ভেঙ্গে নদীতে পড়ছে। সরেজমিনে তাহেরপুর, মাঝিয়ালী, চাঁদপুরসহ কয়েকটি স্থান ঘুরে দেখা গেছে এক শ্রেনীর ব্যবসায়ী বালি উত্তোলন করে বিভিন্ন এলাকায় বিক্রি করছে। এতে ওই সকল এলাকার বাড়ি, ঘর, ফসলী জমি, রাস্তাসহ ব্রিজ হুমকির মুখে পড়েছে। এলাকার বাসিন্দারা আক্ষেপ করে বলেন, আমরা এ ব্যাপারে প্রতিকার চেয়ে স্থানীয় সংসদ সদস্য, জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপার, উপজেলা চেয়ারম্যান, নির্বাহী কর্মকর্তা সহ বিভিন্ন দপ্তরে আবেদন করেছিলাম। তখন প্রশাসন অভিযান চালিয়ে কয়েকটি ড্রেজিং মেশিন আটক করলেও বালি ব্যবসায়ীরা প্রশাসনকে তোয়াক্কা না করে আবারো মেশিন বসিয়ে বালি উত্তোলন করে চলেছে। রোববার উপজেলা নির্বাহী অফিসারের নির্দেশে মণিরামপুর থানা পুলিশ অভিযান চালিয়ে পৌর এলাকা থেকে এক বালি ব্যবসায়ীকে আটক করলেও পরে মুচলেকা নিয়ে তাকে ছেড়ে দেওয়া হয়। হরিহর নদীর অন্যান্য স্থান থেকে অবৈধ ভাবে বালি উত্তোলন বন্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন এলাকার সচেতন মহল।

শেয়ার