যশোরে সুজন সম্পাদক ॥ সুশীল সমাজ রাষ্ট্রীয় সুযোগ সুবিধা নিয়ে বিভিন্ন দলের হয়ে গেছে

sujon
নিজস্ব প্রতিবেদক॥ সুশাসনের জন্য নাগরিক (সুজন)’র সম্পাদক বদিউল আলম মজুমদার বলেছেন, দেশের সুশীল সমাজ রাষ্ট্রীয় সুযোগ সুবিধা নিয়ে বিভিন্ন দলের হয়ে গেছে। দু’টি দল ক্ষমতায় থেকে বিভিন্ন ফায়দা দিয়ে তাদেরকে বিভক্ত করে দিয়েছে। জাগ্রত জনতা ছাড়া গণতন্ত্র মজবুত হয় না। এজন্য সুজন নাগরিকদের ঐক্যবদ্ধ করার চেষ্টা করছে। গতকাল বিকালে যশোরে জয়তি সোসাইটি মিলনায়তনে সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন নাগরিক অধিকার ও দায়িত্ব শীর্ষক খুলনা বিভাগীয় কর্মশালায় তিনি প্রধান আলোচক হিসেবে একথা বলেন।
সুজন যশোর শাখার সভাপতি অ্যাডভোকেট সালেহা বেগমের সভাপতিত্বে তিনি বলেন, গণতন্ত্র সাংবিধানিক অধিকার। এটা কোন ব্যক্তি, গোষ্ঠী কিংবা ধর্মের নয়। আর গণতন্ত্র চর্চা পথের প্রধান পদক্ষেপ হল নির্বাচন। সেখানে বৃহৎ জনগোষ্ঠীর মতামতের প্রতিফলন ঘটলে সেটা গণতন্ত্র চর্চা। আর যারা নির্বাচিত হন তারা যদি সুশাসন নিশ্চিত করেন অর্থ্যাৎ সমাজের উঁচু নিচুর ব্যবধান কমান, নারী পুরুষের সমতা প্রতিষ্ঠা করেন, স্বচ্ছ জবাবদিহিতা নিশ্চিত করেন, স্থানীয় সরকার শক্তিশালী করেন তাহলে গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়াটা কার্যকর পথে অগ্রসর হয়। কিন্তু এর বত্যয় হলে গণতন্ত্র অকার্যকর হয়। সেখানে শুধু নির্বাচন সর্বস্ব গণতন্ত্র। আমাদের দেশে একদলীয় গণতন্ত্র, এটা অকার্যকর গণতন্ত্র। তিনি আরও বলেন, এক তরফা নির্বাচন হলে সেটা গ্রহণযোগ্য হবে না। এজন্য সব দলের অংশ গ্রহণ প্রয়োজন। তা না হলে সমস্যার সমাধান হবে না। এজন্য সংলাপের মাধ্যমে সমাধান করতে হবে।
সভায় বক্তব্য রাখেন সুজনের কেন্দ্রীয় সমন্বয়ক দিলীপ সরকার, রাইটস যশোরের নির্বাহী পরিচালক বিনয় কৃষ্ণ মল্লিক ও অ্যাডভোকেট সালাউদ্দিন স্বপন, সুজনের জেলা সম্পাদক ডা. একেএম মহিদুর রহমান প্রমুখ। উন্মুক্ত আলোচনায় বক্তব্য রাখেন কলামিস্ট ফজলুল হক, অ্যাড. লিটন, অ্যাড. আব্দুল লতিফ লতা, অ্যাডভোকেট নাসিমা বেগম, সাংবাদিক মনিরুল ইসলাম, তহমিনা সুলতানা, বিএম আসাদ, প্রণব দাস, অ্যাডভোকেট নুর আলম পান্নু, আমিনুর রহমান প্রমুখ। জাতীয় সংগীতের মাধ্যমে অনুষ্ঠানটি শুরু করা হয়।

শেয়ার