প্রাথমিক ও ইবতেদায়ী সমাপনী পরীক্ষা প্রথম দিনে অনুপস্থিত ৭২১ পরীক্ষার্থী

primeri
ইন্দ্রজিৎ রায়॥
উৎসবমুখর পরিবেশে বুধবার যশোরে প্রাথমিক ও ইবতেদায়ী সমাপনী পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সকাল থেকে কেন্দ্রের সামনে শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের ভিড় ছিল চোখে পড়ার মত। শিক্ষাজীবনের প্রথম সমাপনী পরীক্ষা ঘিরে শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের মধ্যে ছিল টানটান উত্তেজনা। প্রাথমিক ও ইবতেদায়ী সমাপনী পরীক্ষার প্রথম দিন গণিতে জেলার ৮ উপজেলায় ৭২১জন পরীক্ষার্থী অনুপস্থিত ছিল। এবছর যশোর জেলা থেকে ৫২হাজার ৩২৩জন শিক্ষার্থী রয়েছে। এর মধ্যে প্রাথমিকে ৪৫হাজার ৭৮৯জন ও ইবতেদায়ী ৬হাজার ৫৩৪জন । তবে জেলার কোথায়ও কেউ বহিস্কার হয়নি।
জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিস সূত্র জানায়, এ বছর যশোর জেলার ১৩২টি কেন্দ্রে প্রাথমিকের ৫২হাজার ৩২৩জন পরীক্ষা নেয়া হচ্ছে। সকাল ১১টা থেকে বেলা দেড়টা পর্যন্ত পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হচ্ছে। প্রথম দিন গণিত পরীক্ষায় জেলায় ইবতেদায়ীতে ৬১৬জন ও প্রাথমিকে ১০৫জনসহ মোট ৭২১জন পরীক্ষার্থী অনুপস্থিত ছিল। এরমধ্যে সবচেয়ে বেশি সংখ্যক সদর উপজেলায় প্রাথমিকের ৬৩জন ও ইবতেদায়ীর ১৫৪জন পরীক্ষার্থী। আর সবচেয়ে কম অনুপস্থিত ছিল শার্শা উপজেলায় ইবতেদায়ীতে ২৪জন। এছাড়াও কেশবপুর উপজেলায় ইবতেদায়ীর ৯২জন, অভয়নগর উপজেলায় প্রাথমিকের ২৮জন ও ইবতেদায়ীর ৯২জন, ঝিকরগাছা উপজেলায় ইবতেদায়ীতে ৬০জন, বাঘারপাড়ায় ইবতেদায়ীতে ৭০জন, মণিরামপুরে প্রাথমিকের ১০জন ও ইবতেদায়ীতে ৯৫জন, চৌগাছায় প্রাথমিকের ৪জন ও ইবতেদায়ীর ৩৩জন পরীক্ষার্থী অনুপস্থিত ছিল। তবে কেশবপুর, ঝিকরগাছা, বাঘারপাড়া ও শার্শা উপজেলায় প্রাথমিকের কোন পরীক্ষার্থী অনুপস্থিত ছিল না।
জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার সুব্রত কুমার বণিক বলেন, সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণভাবে প্রথম দিনের গণিত পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়েছে। কোথাও কোন সমস্যা হয়নি।

শেয়ার