প্রসূণকে নিয়ে আশাবাদী কাজী মারুফ

maruf
বাংলানিউজ ॥
গত ৬ সেপ্টেম্বর ঢাকাসহ সারা দেশে মোট ৪৫টি প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি পায় চিত্রনায়ক কাজী মারুফ অভিনীত ছবি ‘ইভ টিজিং’। কাজী হায়াৎ এর পরিচালনায় মারুফের নিজস্ব প্রতিষ্ঠান ‘কাজী মারুফ ফিল্মস’ থেকে ছবিটি মুক্তি পায়। এরপর একই প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান থেকে তৈরী হতে যাচ্ছে নতুন ছবি ‘রাজা গোলাম’।

এ ছবিতে মারুফের বিপরীতে অভিনয় করেছেন লাক্সতারকা প্রসূণ আজাদ। বাংলানিউজের অফিসে দুজনকে একসাথে পেয়ে জানতে চাইলাম এ ছবির গল্প। শুরতেই আড্ডার ছলে বললেন, আগে চলুন ছবি উঠানো শুরু করি। তারপর বলছি।

তারপরও জানতে ইচ্ছে করছিল। কি আছে নতুন এ ছবির গল্পে। ছবি উঠানোর ফাঁকে মারুফ বাংলানিউজকে বললেন, ‘এ ছবিটির গল্প একটু ভিন্ন। এখানে দেখা যাবে, আমার বাবা শহরের একজন বিগশট। আর তার ডান হাত থাকি আমি। আমাকে ভিন্নভাবে এ ছবিতে দেখবেন দর্শকরা। কিন্তু গল্পের এক পর্যায়ে আমি জেনে যাবো, আমি তার সন্তান না। এরপর গল্পে নিবে নতুন মোড়। এরবেশি কিছু এখন বলতে চাই না। আর আমরা ছবির গানগুলো দেশের বাইরে করব।’

কাজী মারুফের নতুন এ ছবিতে মিউজিক করবেন অদিত ও সামির আহমেদ। আর এ ছবির অনান্য চরিত্রে অভিনয় করবেন কাজী হায়াৎ, বাবু, মিজু আহমেদ, হাবিব খান, গুলশান আরা প্রমূখ। ঢাকার আশ পাশের এলাকায় নভেম্বরের শেষে এ ছবিটির শুটিং শুরু হবে।

লাক্সতারকা প্রসূণকে এ ছবিতে নির্বাচনের বিষয়ে জানতে চাইলাম। মারুফ বলেন, ‘ প্রসূণকে নিয়ে আমি বেশ আশাবাদী। তার ছবিতে অভিনয় করার প্রবল ইচ্ছে আছে। আর ইচ্ছে থাকাটা বেশ জরুরি। তবে একটা কথা বলতে চাই, ভালো অভিনয় করে অভিনেত্রী হওয়াটা সহজ, তবে তারকা হওয়া ভাগ্যের বিষয়।’

এবার এ ছবির প্রধান নায়িকা প্রসূণের চরিত্র নিয়ে জানতে চাইলাম। প্রসূণ বললেন, ‘আমি এখন নাটকের কাজ করছি না। আমার টার্গেট শুধুই ছবি। এ ছবিতে আমাকে একজন নারী সাংবাদিক চরিত্রে দেখবেন দর্শকরা। আর আমি এ চরিত্রটি অনেক গুরুত্ব দিয়ে করতে চাই। আশা করি, আমার ও মারুফ ভাইয়ের জুটি দর্শক গ্রহণ করবে।’

কাজী মারুফ ফিল্মস থেকে ‘রাজা গোলাম’ ছবিটি পরিচালনা করবেন শাহাদাৎ বিদ্যুৎ। আর সার্বিক তত্ত্বাবধানে থাকবেন কাজী হায়াৎ। এ ছবির বাইরে কাজী মারুফ ‘সর্বনাশা ইয়াবা’ নামের একটি ছবিরও কাজ শুরুর কথা ভাবছেন।

এ ছবিটি নিয়ে মারুফ বললেন, ‘ইভ টিজিৎ এর পর এ ছবিটির কথা ভাবছি। কারণ বর্তমানে সমাজের তরুণ-তরুণীরা এ নেশায় পড়ে তাদের সুন্দর জীবন নষ্ট করছে। এ ছবিতে আমরা বাস্তব জীবনের কিছু ঘটনার প্রতিফলন দর্শকদের দেখাতে চাই। সমাজ সচেতেনতা নিয়ে এ গল্পের সবকিছু এখনো চুড়ান্ত হয়নি। প্রাথমিকভাবে পুলিশের সাথেও কথা হয়েছে। তারা আমাদের সহযোগিতা করবেন। যেভাবেই হোক এ কাজটিও আমি সফলতার সাথে শেষ করতে চাই।’

বাবা কাজী হায়াতের `ইতিহাস` ছবির মাধ্যমে চলচ্চিত্রে যাত্রা শুরু করেন মারুফ। প্রথম ছবিতেই দর্শকদের মন জয় করেন এ অভিনেতা। এ ছবির পর বাবা ও ছেলের আরো পাঁচটি ছবি মুক্তি পায়। যার মধ্যে `অন্ধকার`, `অন্য মানুষ` ও `শ্রমিক নেতা` সুপারহিট হয়। এরপর ৩০টিরও বেশি ছবিতে অভিনয় করেন মারুফ।

ব্যক্তি জীবনে মারুফ রুটিনমাফিক চলতে পছন্দ করেন। মারুফ চান পর্দার সেরা নায়ক হওয়ার পাশাপাশি ব্যক্তি জীবনে সেরা মানুষ হতে। সে পথেই হাটছেন এ অভিনেতা। আর আশা করছেন লাক্সতারকা প্রসূণকে নিয়ে তার নতুন ছবির যাত্রা সফল হবে। আমাদেরও একই প্রত্যাশা রইল।

শেয়ার