নার্গিস বেগমের সাথে রাজপথে থাকা বিএনপি নেত্রী আলো মেম্বর ফেনসিডিলসহ আটক ॥ তোলপাড়

nargis
নিজস্ব প্রতিবেদক॥ বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য তরিকুল ইসলামের সহধর্মিনী নার্গিস বেগমের সাথে মিছিল মিটিং করা যশোরের উপশহর ইউনিয়নের মেম্বর ও বিএনপি নেত্রী আলেয়া সিদ্দিকী আলো সম্প্রতি ফেনসিডিলসহ ফরিদপুরে আটক হন। এ ঘটনা জানাজানি হওয়ায় এলাকায় তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে। একইভাবে তরিকুল পরিবার একজন ফেনসিডিল ব্যবসায়ীকে পাশে রাখার খবর পেয়ে দলের নিবেদিত নেতারা চরম বিব্রতবোধ করছেন।
জাতীয়তাবাদী মহিলা দল যশোর সদর উপজেলা শাখার সাবেক সহ-মহিলা বিষয়ক সম্পাদিকা উপশহর ইউনিয়নের মেম্বর স্থানীয় সি-ব্লকের ২৫৪/১ নং বাড়ির বাসিন্দা মঈন উদ্দিনের স্ত্রী আলেয়া দীর্ঘদিন যাবৎ ফেনসিডিলের ব্যবসা করে আসছেন। গত কয়েকদিন ধরে এলাকায় গুঞ্জন উঠে তিনি ফরিদপুর মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের একটি টিমের হাতে ফেনসিডিলসহ আটক হন। আটকের পর তিনি নাম পরিচয় গোপন রাখেন। তদন্তকারী কর্মকর্তা মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের ফরিদপুর সদর সার্কেলের উপপরিদর্শক সাংবাদিকদের জানান, ৩ নভেম্বর মহিলা মেম্বর আলেয়া সিদ্দিকী আলো মিতা বেগম ও ইয়াসিনকে সাথে নিয়ে মধুমতি পরিবহনে ঢাকা যাচ্ছিলেন। এসময় তারা শরীরে ৮০ বোতল ফেনসিডিল বিশেষ কায়দায় বেঁধে নিয়ে যাচ্ছিলেন। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ফরিদপুর মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর জেলার পশ্চিম হাসানদিয়া ভাঙ্গা নামক স্থানে পরিবহন থামিয়ে তাদেরকে আটক করে। সেই সাথে শরীর তল্লাশি করে ৮০ বোতল ফেনসিডিল উদ্ধার করে। পুলিশের হাতে আটক হওয়ার পর মেম্বর আলো তার নাম বলেন নাজমা এবং তার সঙ্গী মিতার নাম বলেন ফাতেমা। একই সাথে স্থায়ী ঠিকানা উপশহর গোপন করে ঢাকার বিক্রমপুরের একটি ভুয়া ঠিকানা জানান। এ সময় মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই জাহিদ আসামিদের নাম ঠিকানা সঠিক কিনা যাচাইকালে আসল ঘটনা বেরিয়ে আসে। আটকের সময় আলো এবং মিতা পুলিশের কাছে যে ঠিকানা বা নাম বলে তা ছিল ভুয়া। এদিকে, অপর একটি সূত্র জানিয়েছে, আটকের পর মাদকদ্রব্যের ওই টিমের সাথে তারা তিনজনই দেন দরবার করে। তাদের মুক্ত করার প্রস্তাব দিয়ে ৫০ হাজার টাকা দাবি করা হয়। কিন্তু তারা ২৫ হাজার টাকা পর্যন্ত দিতে রাজি হয়। তাদের সাথে দেনদরবার সঠিকভাবে না হওয়ায় তিন জনের বিরুদ্ধে মামলা দিয়ে জেলহাজতে পাঠানো হয়। এদিকে, আলো মেম্বর ফেনসিডিলসহ আটকের ঘটনা ফাঁস হয়ে যাওয়ায় শহরে সমালোচনার ঝড় উঠেছে। বিশেষ করে বিএনপি নেত্রী নার্গিস বেগমের রাজপথের সহকর্মী আলো মাদকসহ পুলিশের হাতে আটক হওয়ার খবর শুনে সাধারণ মানুষ নানা রকম মন্তব্য করছে। কেউ কেউ বলছে তরিকুল ইসলাম এ অঞ্চলের সন্ত্রাসীদের গডফাদার হিসেবে পরিচিত। আর তার স্ত্রী নার্গিস ইসলাম মাদক ব্যবসায়ীদের শেল্টারদাতা হলে বিএনপির কর্মীরা লজ্জায় মুখ দেখাতে পারবে না।

শেয়ার