শফীকে ৮০টি বেত্রাঘাত করা উচিত

বাংলানিউজ ॥
হেফাজত ইসলামের আমির আল্লামা আহমদ শফীকে ৮০টি বেত্রাঘাত করা উচিত বলে মন্তব্য করেছেন আহলে সুন্নাত আল জাম’আত নেতারা।
শনিবার রাতে গণভবনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে মতবিনিময়ে আহলে সুন্নাত আল জাম’আত নেতারা এ মন্তব্য করেন।
কওমি মাদ্রাসা ও কওমি অনুসারীদের তীব্র সমালোচনা করে মাওলানা জাহান শাহ আবেদীন বলেন, যারা হযরত আলীকে (রা.) হত্যা করেছিলো তারা খারেজি। সেই খারেজিরা নাম পরিবর্তন কওমি হয়েছে। খারেজিরা কওমি ও হেফাজত দুই ভাগে বিভক্ত।
তিনি প্রধানমন্ত্রীকে উদ্দেশ্য করে বলেন, কওমিরা এখন ছোট বোমা বানাচ্ছে। ভবিষ্যতে সনদ পেয়ে চাকরি করতে পারলে তারা বেতনের টাকা দিয়ে বড় বোমা বানাবে। এদের কোনোভাবে আশ্রয়-প্রশ্রয় দেওয়া যাবে না।
আগামীতে সংসদে প্রতিনিধিত্ব করতে ১০ আসনে সুন্নাত আল জাম’আতকে নির্বাচন করতে দেওয়ার সুযোগ চেয়ে জাহান শাহ আরও বলেন, আমরা আওয়ামী লীগের পাশে থাকলে জনগণের চোখে আঙুল দিয়ে বিএনপি-জামায়াত হেফাজতের কর্মকা- দেখিয়ে দিতে পারব।
মাওলানা সাইফুর রহমানও কওমিদের সমালোচনা করে বলেন, কওমিদের পুষে লাভ নেই। এরা শেষ পর্যন্ত ঠিক থাকবে না। এদের মুখে এক অন্তরে আরেক।
কোরআনের আইন অনুযায়ী আহমদ শফীকে ৮০টি বেত্রাঘাত করা উচিত বলে মন্তব্য করে আহলে সুন্নাত ওয়াল জাম’আত নেতা মাওলানা জিয়াউল হাসান বলেন, কোরআনের আয়াত অনুযায়ী কেউ যদি কোনো নারীর বিরুদ্ধে পাপাচারের অভিযোগ আনেন তবে তাকে চারজন সাক্ষী হাজির করতে হয়। শফী সাহেব বলেছেন গার্মেন্টসের মেয়েরা পাপাচার করে। তিনি কি চারজন সাক্ষী নিয়ে আসতে পারবেন। তিনি তা আনতে পারবেন না। না পারলে কোরআনের আয়াত অনুযায়ী তাকে ৮০টি বেত্রাঘাত দেওয়া উচিত।

শেয়ার