বরফের হোটেলে ফায়ার এলার্ম!

সমাজের কথা ডেস্ক॥ এবার ভীষণ বিপদে পড়েছেন সুইডেনের বিশ্বখ্যাত বরফ হোটেলের(আইস হোটেল)নির্মাতা প্রতিষ্ঠান। কেননা এই আইস হোটেলে এবার ফায়ার এলার্ম বসানোর নির্দেশ দিয়েছে সুইডেনের গৃহায়ণ বিভাগ। অন্যথায় চলতি বছর এটি পুননির্মাণের অনুমতি দেয়া হবে না বলেও সাফ জানিয়ে দিয়েছে তারা।
উল্লেখ্য, সুইডেনের ‘আর্কটিক সার্বেল’-এর নিকট একটি ছোট্ট গ্রামে অবস্থিত আইস্ হোটেলটি বিশ্বের সবচেয়ে বরফ শীতল হোটেল। প্রতি বছর শীতকালে একদল নির্মাতা এবং ডিজাইনার সম্পূর্ণ বরফ ও তুষারের সমন্বয়ে এই দর্শনীয় হোটেলটি নির্মাণ করে থাকেন।
সুইডেন সরকারের এই অদ্ভূত আবদারে এবার ভীষণ দুশ্চিন্তায় পড়েছেন হোটেল কর্তৃপক্ষ। তারা ভেবেই পাচ্ছে না গোটা হোটেল আর এর সমস্ত আসবাবপত্রই যেখানে বরফে নির্মিত সেখানে আগুন আসবে কোত্থেকে? আর আগুনই যদি না লাগে তাহলে ফায়ার এলার্ম(অগ্নি সতর্কীকরণ যন্ত্র)বসানোরই বা কী প্রয়োজন!
গতবার হোটেলের এক অতিথি সিগারেট জ্বালাতে গিয়ে ছোটখাট বিস্ফেরণ ঘটনার প্রেক্ষিতে এই আজব নির্দেশ জারি করা হয়েছে বলে জানা গেছে।
এ সম্পর্কে হোটেলের প্রেস কর্মকর্তা বিটরিস কার্লসন স্থানীয় সংবাদ মাধ্যমকে বলেন,‘আমরা পুরোপুরি বিস্মিত।এখানে তো আগুন লাগতে পারে এমন কোনো উপাদান নেই।তাহলে এ নির্দেশ কেন? গত বছর একজন অতিথি ধুমপানের জন্য নির্ধারিত স্থানে সিগারেট খাওয়ার সময় কিছু ধুঁয়া দেখা গিয়েছিল। এটাতো তেমন মারাত্মক কিছু নয়।’
তিনি আরো বলেন, গত বছর হোটেলটিতে যে স্মোক এলার্ম(ধুঁয়া সতর্কীকরণ যন্ত্র)বসানো হয়েছিল প্রকৃতপক্ষে বরফের মধ্যে এর অবস্তান খুঁজে বের করাটাই তাদের জন্য কষ্টকর হয়ে দাঁড়িয়েছে। কেননা মৌসুম শেষে গোটা হোটেলটিই যে অপসারিত হয়েছে।
তাই গত বছর পরীক্ষামূলকভাবে স্মোক এলার্ম বসানোর পর এবার ফায়ার এলার্ম বসানোর নির্দেশে যারপারনাই বিস্মিত ও বিরক্ত তারা।
প্রতিবছর ডিসেম্বর থেকে এপ্রিল মাসের মধ্যে থর্ন নদী থেকে তুষার তুলে বানানো হয় এই আইস হোটেলটি। এর চেয়ার- টেবিল, খাট-পালঙ্ক এমনকি হোটেলের ভাষ্কর্য পর্যন্ত বরফ দিয়েই তৈরি করা হয়। এটি প্রথম নির্মিত হয় ১৯৯০ সালে। সে হিসেবে চলতি বছরেই এ হোটেলের ২৩ বছর পূর্তি হওয়ার কথা রয়েছে।

শেয়ার