রাজনীতিতে অবসর নিলে টুঙ্গীপাড়ায় থাকবো

PM
বাংলানিউজ॥ রাজনীতি থেকে অবসর নিলে জাতির পিতা যে মাটিতে শুয়ে আছেন সেই টুঙ্গীপাড়ার মাটিতেই থাকবেন বলে আশা প্রকাশ করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।
মঙ্গলবার বিকেলে স্থানীয় আওয়ামী লীগ আয়োজিত জনসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ আশার কথা জানান।
রাজনীতি থেকে অবসর নেওয়ার পরে টুঙ্গিপাড়ায় থাকবেন বলে জানান প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান টুঙ্গীপাড়ার মাটিতে জন্মগ্রহণ করেছেন, টুঙ্গীপাড়ার মাটিতে শুয়ে আছেন। আমার আত্মাটাও পড়ে আছে এখানে। আমি রাজনীতি থেকে অবসর নিলে এই টুঙ্গীপাড়ায় থাকবো।
জনসভায় শেখ ফজলুল করিম সেলিম, আমির হোসেন আমু, তোফায়েল আহমেদ, কাজী আকরাম উদ্দিন আহম্মেদ, আবুল হাসনাত আব্দুল্লাহ প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।
কোটালীপাড়া উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি অ্যাডভোকেট সুভাষ চন্দ্র জয়ধর জনসভায় সভাপতিত্ব করেছেন।
তার নির্বাচনী এলাকার মানুষকে উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, আমার দায়িত্ব সারা বাংলাদেশ। আপনাদের কল্যাণের জন্যই আমি কাজ করতে চাই। আগে রাস্তা ছিল না এখানে। লঞ্চ, স্টিমারে করে এসেছি। আজ এসেছি গাড়ি চালিয়ে। আমি চাই এসব এলকা আরও উন্নতি হবে। যাদের জন্য বঙ্গবন্ধু আজীবন কাজ করেছেন তাদের নিরাপত্তা দেওয়া, উন্নয়ন করা, শন্তিতে রাখাই আমার প্রধান কর্তব্য।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, যাদের ঘরবাড়ি নেই তাদের ঘরবাড়ি হবে। প্রত্যেক ছেলে মেয়ে লেখাপড়া শিখবে। প্রতি জেলায় জেলায় আগামীতে ক্ষমতায় এলে আমরা বিশ্ববিদ্যালয় করে দেব।
তিনি বলেন, আমরা উপবৃত্তি দিচ্ছি যেন গরীবরাও লেখা শিখতে পারে। আমরা ইউনিয়ক কমপ্লেক্স, উপজেলা কমপ্লেক্স তৈরি করে দিচ্ছি, যেন সবাই তাদের সমস্যার কথা সহজে জানাতে পারে। আমরা বয়স্ক ভাতা দিচ্ছি। বিধবা ভাতা দিচ্ছি।
শেখ হাসিনা বলেন, প্রত্যেক ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানের উন্নয়নের জন্য ব্যাপক কার্যক্রম হাতে নিয়েছি। এই মাটিতে প্রত্যেক ধর্মের লোক স্বাধীনভাবে বাস করবে। যে যার ধর্ম পালন করবে। সেভাবেই আমরা দেশ গড়ে তুলতে চাই।
দুঃখ ভারাক্রান্ত হয়ে তিনি বলেন, আমি জানি না আমার মায়ের কি অপরাধ ছিল সেদিন। আমার ভাই কামাল, জামাল, রাসেলকে হত্যা করা হয়েছে। তাদের কি অপরাধ ছিল। আমার মনে হয় আমার দুর্ভাগ্য যে আমি সেদিন বিদেশে ছিলাম।

শেয়ার