চুড়ামনকাটিতে মালবাহী ট্রেন লাইনচ্যুত ॥ ১৫ ঘণ্টা পর রেল যোগাযোগ স্বাভাবিক ॥ তদন্ত কমিটি গঠন

নিজস্ব প্রতিবেদক॥ যশোর সদর উপজেলার চুড়ামনকাটিতে মালবাহি ট্রেন লাইনচ্যুত হওয়ায় সারাদেশের সঙ্গে প্রায় ১৫ঘণ্টা রেল যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন ছিল। রোবার রাত ১টার দিকে মেহেরুল্লানগর স্টেশনের কাছে ওই মালবাহি ট্রেনটি লাইনচ্যুত হয়। সোমবার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে দুর্ঘটনাস্থল থেকে ট্রেনটি সরিয়ে নেয়া হয়। কিন্তু এর পরপরই ওই ট্রেনের আরও দু’টি বগি লাইনচ্যুত হয়ে পড়ে। এরপর ওই ট্রেন সরিয়ে রেললাইন স্বাভাবিক করতে আরও সাড়ে ৩ঘণ্টা লেগে যায়। বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে রেল যোগাযোগ পুনঃস্থাপিত হয়েছে।
যশোর রেলওয়ে জংশনের সহকারী স্টেশন মাস্টার সাইদুজ্জামান জানান, জয়পুরহাট থেকে ছেড়ে আসা চালবোঝাই একটি ট্রেনের দু’টি বগি চুড়ামনকাটির একটি রেলক্রসিংয়ের কাছে লাইনচ্যুত হয়। এর মধ্যে একটি বগি রেললাইনের পাশে মাঠের মধ্যে উল্টে পড়েছে। ট্রেনটি লাইনচ্যুত হওয়ায় খুলনার সঙ্গে সারাদেশের রেল যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়।
রেলওয়ের জুনিয়র ট্রাফিক ইন্সপেক্টর শিকদার বায়েজিত জানান, সোমবার সকাল সাড়ে ৬টার দিকে উদ্ধারকারী ট্রেন ঘটনাস্থলে গিয়ে পৌঁছায়। এরপর প্রায় ৬ঘণ্টার চেষ্টার পর লাইনচ্যুত বগি সরিয়ে নেয়া হয়। দুপুর সাড়ে ১২টার পর রেললাইন স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরিয়ে নেয়া হয়। কিন্তু এর পরপরই ওই মালবাহী ট্রেনের আরও দু’টি বগি লাইনচ্যুত হয়। ফলে উদ্ধারকারী ট্রেনের ওই বগি উদ্ধার করতে আরও সাড়ে ৩ ঘন্টা লেগে যায়। বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে রেল যোগাযোগ পুনঃস্থাপিত হয়েছে বলে জানিয়েছেন যশোর রেলওয়ে জংশনের সহকারী স্টেশন মাস্টার শরিফুজ্জামান। তিনি জানান, এ দুর্ঘটনার কারণে সকালের রাজশাহীগামী আন্তনগর কপোতাক্ষ এক্সপ্রেসটি বাতিল করা হয়।
এদিকে, দুর্ঘটনার কারণ অনুসন্ধানে ৪ সদস্যের একটি তদন্তটিম গঠন করা হয়েছে। লাইনের ত্রুটির কারণে এ দুর্ঘটনা ঘটেছে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে।
যশোর কোতোয়ালি মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এমদাদুল হক জানিয়েছেন, রেল লাইনচ্যুত হওয়ার ঘটনাটি নিছকই দুর্ঘটনা। এটি কোনো নাশকতা নয়।

শেয়ার