নির্বাচনে থাকছে মঞ্জুর জেপি

Monju
সমাজের কথা ডেস্ক॥ সর্বদলীয় সরকারের অধীনে বিএনপি আগামী সংসদ নির্বাচনে অংশ না নিলেও নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতার ঘোষণা দিয়েছে সাবেক মন্ত্রী আনোয়ার হোসেন মঞ্জুর জাতীয় পার্টি (জেপি)।
আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন মহাজোটের বাইরে প্রথম দল হিসেবে তারা এ ঘোষণা দিলো।
সোমবার ১৪ দলের নেতাদের সঙ্গে মতবিনিময় শেষে জাতীয় পার্টির (জেপি) সভাপতি আনোয়ার হোসেন মঞ্জু দলীয় এ অবস্থান জানান।
সাংবাদিকদের তিনি বলেন, “নির্বাচনে আসা না আসা যে কারো গণতান্ত্রিক অধিকার। কিন্তু সাংবিধানিক ধারা অব্যাহত রাখতে নির্বাচনের প্রয়োজন আছে।
“শান্তিপূর্ণ ক্ষমতা হস্তান্তরে নির্বাচনের বিকল্প নেই। আমরা নির্বাচনে অংশ নেবো।”
নির্দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচনের দাবিতে আন্দোলন করছে বিএনপি নেতৃত্বাধীন ১৮ দলীয় জোট। নির্দলীয় সরকার ছাড়া নির্বাচনে না যাওয়ারও ঘোষণা রয়েছে তাদের।
এদিকে নির্বাচিত জনপ্রতিনিধিদের নিয়ে সর্বদলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচনের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে সরকার।

দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচন সামনে রেখে ইতোমধ্যে দলীয় মনোনয়ন ফরম বিক্রিও শুরু করেছে আওয়ামী লীগ।
এ পরিস্থিতিতে প্রধান বিরোধী দল বিএনপি নির্বাচনে না এলে কী করবেন জানতে চাইলে আনোয়ার হোসেন মঞ্জু বলেন, “উনি (খালেদা জিয়া) না করলে আমি করবো না- এতো অসহায় আমরা না।”
গত ১ নভেম্বর গণভবনে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠক করে জেপি। ওই বৈঠকে আনোয়ার হোসেন মঞ্জু সাংবিধানিক ধারা রক্ষার পক্ষে তার দলের অবস্থানের কথা তুলে ধরে বলেন, “জাতীয় পার্টি সাংবিধানিক ধারার পক্ষে ছিল। এখনো আছে। আমরা চাই সাংবিধানিক ধারা অব্যাহত থাকুক। সাংবিধানিক ধারায় নির্বাচন হলে, আমরা নির্বাচনের পক্ষে।”
এক প্রশ্নের জবাবে বিগত আওয়ামী লীগ সরকারের এই যোগাযোগ মন্ত্রী বলেন, “১৪দল বা এর ভেতরের অন্য কোন দল যদি নির্বাচনে অংশ না নেয় তারপরও নির্বাচন হবে।”
জেপি মহাজোটের সঙ্গে, না আলাদাভাবে নির্বাচন করবে জানতে চাইলে আনোয়ার হোসেন মঞ্জু সরাসরি উত্তর না দিয়ে বলেন, “১৪ দল বা মহাজোটের সঙ্গে থাকা দলগুলোর মধ্যে অনেক বিষয়ে দ্বিমত আছে। আলাদা ম্যানিফেস্টো আছে। কিন্তু এক জায়গায় তারা একমত। সেটা হচ্ছে সংবিধানের ধারা বজায় রাখতে হলে নির্বাচনের বিকল্প নেই।”

শেয়ার