সিদ্দিকুরের দিল্লি জয়

siddiqur
সমাজের কথা ডেস্ক॥ চতুর্থ রাউন্ডে এসে খেই হারিয়ে ফেললেও শেষ দিকের দৃঢ়তায় হিরো ইন্ডিয়ান ওপেন জিতেছেন সিদ্দিকুর রহমান। এটি বাংলাদেশের সেরা এই গলফারের দ্বিতীয় এশিয়ান ট্যুর শিরোপা।
ভারতের দিল্লি গলফ ক্লাবে আরাধ্য শিরোপা জেতার পথে রোববার চতুর্থ রাউন্ডে সিদ্দিকুর বেশ স্নায়ুচাপে ভুগেছেন। কয়েকটি টি শট (প্রতিটি হোলের প্রথম শট) ঠিকমতো মারতে পারেননি তিনি, যা দেখা যায়নি আগের তিনটি রাউন্ডে।
কিন্তু শেষ দু’টি হোলে মাথা ঠাণ্ডা রেখে ইন্ডিয়ান ওপেনের সুবর্ণ জয়ন্তীতে খ্যাতনামা ভারতীয় গলফারদের হতাশ করে শিরোপা জিতে নেন বাংলাদেশের সেরা গলফার। প্রাইজমানি হিসেবে তিনি পেয়েছেন ২ লাখ ২৫ হাজার ডলার বা প্রায় এক কোটি ৮০ লাখ টাকা। এশিয়ান ট্যুরের অর্ডার অব মেরিটে উঠে এসেছেন তিন নম্বর অবস্থানে।
তৃতীয় রাউন্ড শেষে চার শট এগিয়ে থেকে (-১৭) শীর্ষে ছিলেন সিদ্দিকুর। রোববার চতুর্থ ও শেষ রাউন্ডে দ্বিতীয় ও পঞ্চম হোলে বার্ডি (কোনো হোলের নির্ধারিত পারের চেয়ে এক শট কম খেলা) করেন তিনি। কিন্তু ষষ্ঠ হোলে এসে খেই হারান আক্রমণত্মক খেলতে থাকা সিদ্দিকুর। প্রথম শট ঝোপে গিয়ে পড়লে শেষ পর্যন্ত বোগি (পারের চেয়ে একটি শট বেশি খেলা) নিয়ে এই হোলের খেলা শেষ করতে হয় তাকে।
ঠিকমতো টি শট (প্রতিটি হোলের প্রথম শট) মারতে না পেরে তিনি ‘বোগি’ করেন নবম হোলেও। এক শট বেশি খেলেছেন দশম হোলেও। একাদশ হোলেও হয় ‘বোগি’।
টানা তিনটি বোগির পর ফিরে আসেন সিদ্দিকুর। ১৩ ও ১৪ নম্বর হোলে পান ‘বার্ডি’। কিন্তু ১৫তম হোলে ‘ট্রিপল বোগি’ ( পারের চেয়ে তিনটি শট বেশি খেলা) করে শিরোপা জয়ের পথটা কঠিন করে ফেলেন তিনি। পরের হোলে আবার করেন বোগি। এ সময় তাকে ছুঁয়ে ফেলে আরো তিনজন গলফার।
তবে ১৭তম হোলে অবিশ্বাস্য এক ‘বার্ডি’ করে আবার এক শট এগিয়ে যান সিদ্দিকুর। ১৮তম বা শেষ হোলে মাথা ঠান্ডা রেখে ১৪ আন্ডার পার (টুর্নামেন্টের মোট পারের চেয়ে ১৪ শট কম খেলা ) নিয়ে শিরোপা জেতেন তিনি।
এক শট বেশি খেলে (-১৩) যৌথভাবে দ্বিতীয় হন দুই ভারতীয় গলফার অনির্বাণ লাহিড়ি ও এস.এস.পি. চৌরাশিয়া।
এর আগে ২০১০ সালের অগাস্টে ব্রুনাই ওপেন জিতেছিলেন সিদ্দিকুর। সেটাই বাংলাদেশি কোনো গলফারের প্রথম এশিয়ান ট্যুর শিরোপা জয়ের কৃতিত্ব।
ইন্ডিয়ান ওপেন জয় করে সিদ্দিকুর বলেন, “এখানে জিততে পেরে আমি খুব খুশি। ব্রুনাইয়ে জেতার পর মাঝে আমাকে অনেক কষ্ট করতে হয়েছে। তবে এই সপ্তাহ জুড়ে এখানে বেশ ভালো খেলেছি। আজ (রোববার) কিছু খারাপ শট খেলেছি তবে দিনশেষে জিততে পেরে আনন্দিত।”
ভারতের গলফারদের কাছে ‘পঞ্চম মেজর’ হিসেবে পরিচিত ইন্ডিয়ান ওপেনে প্রথম রাউন্ড থেকেই সিদ্দিকুরের সঙ্গে পেরে উঠছিলেন না খ্যাতনামা ভারতীয় খেলোয়াড়রা। প্রথম তিন রাউন্ড শেষে মোট ১৭ শট কম খেলে এককভাবে শীর্ষে ছিলেন দেশের প্রথম পেশাদার এই গলফার। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বীর চেয়ে এগিয়ে ছিলেন চার শট।
শনিবার তৃতীয় রাউন্ডে মোট পাঁচটি ‘বার্ডি’ করেছেন সিদ্দিকুর। প্রথম পাঁচজনের মধ্যে একমাত্র তিনিই কোনো ‘বোগি’ করেননি। কিন্তু সেই সিদ্দিকুরই চতুর্থ রাউন্ডে এসে করলেন ৫টি বোগি ও একটি ট্রিপল বোগি।
প্রথম রাউন্ডে ছয়টি বার্ডির সাহায্যে পারের চেয়ে ছয় শট কম খেলেছিলেন সিদ্দিকুর। আর শুক্রবার দ্বিতীয় রাউন্ডে ছয়টি বার্ডির ও একটি ‘ঈগল’ (কোনো হোলে পারের চেয়ে দুই শট কম খেলা) করলেও দুটি ‘বোগি’ করায় দুই রাউন্ড মিলে ১২ শট কম নিয়ে এককভাবে শীর্ষে ছিলেন তিনি। তৃতীয় রাউন্ডে পারের চেয়ে ৫ শট কম খেলা সিদ্দিকুর শেষ রাউন্ডে পারের চেয়ে ৩ শট বেশি খেলে তো শীর্ষস্থান হারাতে বসেছিলেন।
প্রথম বাংলাদেশি হিসেবে বিশ্বকাপ গলফে খেলতে যাচ্ছেন সিদ্দিকুর। অস্ট্রেলিয়ার মেলবোর্নে আগামী ২১ থেকে ২৪ নভেম্বর এই প্রতিযোগিতা হবে।
বিশ্বকাপের প্রস্তুতি হিসেবে এর আগে ১৪ থেকে ১৭ নভেম্বর মেলবোর্ন মাস্টার্স গলফ টুর্নামেন্টে অংশ নেবেন তিনি।

শেয়ার