রাজধানীজুড়ে হরতাল সমর্থকদের তাণ্ডব গাড়িতে আগুন-ককটেল

hortal
বাংলানিউজ ॥
টানা ৮৪ ঘণ্টা হরতালের আগের দিন রাজধানীজুড়ে গাড়িতে আগুন ও ককটেল বিস্ফোরণ ঘটিয়েছে হরতাল সমর্থকরা।
পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে সন্ধ্যায় নয়াপল্টনে পুলিশের ফাঁকা গুলি ছোড়ার খবর পাওয়া গেছে।
শনিবার বিকেলেই গাড়ি পোড়ানো শুরু হয় রাজধানীতে। সন্ধ্যার পরও গাড়িতে আগুন ও ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটেছে।
দুই মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে বিএনপির পাঁচ শীর্ষনেতাকে জেল হাজতে পাঠানোর পরপরই মূলত এই গাড়ি পোড়ানোর মচ্ছব শুরু হয়।
সন্ধ্যায় রাজধানীর নয়াপল্টন, পল্টন থানার মোড় ও ফকিরাপুল মোড়ে ১০টি ককটেল বিস্ফোরণ ঘটিয়েছে হরতাল সমর্থকরা। এসময় পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে ফাঁকা গুলি ছোড়ে।
তবে এ ঘটনায় কাউকে আটক করতে পারেনি পুলিশ।
ঘটনার পর পল্টন এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন থাকতে দেখা গেছে। বিএনপির দলীয় কার্যালয় এলাকায় থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে।
সন্ধ্যায় শাহবাগে ইটিসি পরিবহনের একটি বাসে পেট্রোল বোমা ছুড়লে এতে আহত হন বেসরকারি জীবন বীমা কোম্পানি আমেরিকান লাইফ ইন্স্যুরেন্সের (মেটলাইফ অ্যালিকো) পিয়ন আবদুর রাজ্জাক মিন্টু (২০)। এতে তার শরীরের ২০ শতাংশ পুড়ে গেছে বলে জানা গেছে।
সন্ধ্যা সাতটার দিকে মিরপুর তালতলা মোড়ো জাবেলে নূর পরিবহনে আগুন দেয় হরতাল সমর্থকরা।
এর কিছুণ পর মহাখালী ফাইওভারের উপর থেকে তিনটি ককটেল নিচে ছুড়ে মারেন এক মোটরসাইকেল আরোহী। তবে এতে কোনো হতাহতের ঘটনা ঘটেনি।
এর আগে বিকেলে রাজারবাগে একটি দোতলা বাসে আগুন ধরিয়ে দেয় জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলের কর্মীরা। একই সময়ে গুলিস্তানের ফুলবাড়িয়ায় আরো একটি বাসে আগুন ধরিয়ে দেওয়ার ঘটনা ঘটে।
বিকেল সোয়া ৫টার দিকে গুলিস্তান গোলাপ শাহ মাজারের কাছে ঢাকা পরিবহনের একটি বাসে আগুন দেয় হরতাল সমর্থকরা।
প্রত্যদর্শীরা জানায়, বিকেলে হরতাল সমর্থনে শ্লোগান দিয়ে ঢাকা পরিবহনের একটি বাস থেকে যাত্রীদের নামিয়ে পেট্রোল ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেয় তারা।
ফায়ার সার্ভিসের কন্ট্রোল রুম বাংলানিউজকে জানায়, ফায়ার সার্ভিসের একটি ইউনিট আগুন নেভানোর কাজ করছে।
সকালে যাত্রাবাড়ীতেও একটি দোতলা বাস পোড়ানো হয়।

শেয়ার