জেএসসি: ৩ দিনের পরীক্ষা পেছাল

Tejgon
সমাজের কথা ডেস্ক॥ শিক্ষার্থী-অভিভাবকদের উদ্বেগের মধ্যে রেখে হরতালের কারণে শুরুতেই একবার পেছানো জেএসসি ও জেডিসি পরীক্ষা একই কারণে আবারো পেছাল।
পরিবর্তিত সময়সূচি অনুযায়ী- জেএসসির ১০ নভেম্বরের পরীক্ষা ১৪ নভেম্বর, ১১ নভেম্বরের পরীক্ষা ১৬ নভেম্বর এবং ১২ নভেম্বরের পরীক্ষা ২১ নভেম্বর বিকাল ২টায় অনুষ্ঠিত হবে।
আর জেডিসির ১০ নভেম্বরের পরীক্ষা ১৪ নভেম্বর, ১১ নভেম্বরের পরীক্ষা ২১ নভেম্বর বেলা ২টায় এবং ১২ নভেম্বরের পরীক্ষা ২২ নভেম্বর সকাল ৯টায় অনুষ্ঠিত হবে।
বিএনপি নেতৃত্বাধীন ১৮ দলীয় জোট নির্দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচনের দাবিতে ১০, ১১ ও ১২ নভেম্বর হরতালের ঘোষণা পর শনিবার সংবাদ সম্মেলনে পরীক্ষার সময় পুনর্নির্ধারণের কথা জানান শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ।
হরতালের সমালোচনা করে তিনি বলেন, “আমরা বাধ্য হচ্ছি অন্যায়ভাবে, চরম চাপের মুখে পরীক্ষা পিছিয়ে দিতে। হরতালে ছেলে-মেয়েদের ধ্বংসের মুখে ফেলে দিতে পারি না। তাই পরীক্ষার সূচি পেছানো হলো।”
মিন্টো রোডের সরকারি বাড়িতে ওই সংবাদ সম্মেলনে শিক্ষামন্ত্রী বিরোধী দলের উদ্দেশে বলেন, “সংকীর্ণ দলীয় স্বার্থে হরতাল দেয়া হচ্ছে। এই পথ ছেড়ে আন্দোলনের অনেক পথ আছে, তা গ্রহণ করুন।
নাহিদ সাংবাদিকদের বলেন, “পুরো শিক্ষা পরিবার আজ মুসিবতে আছে। নভেম্বর ও ডিসেম্বর মাস শিক্ষা সমাপনী ও মূল্যায়নের মাস। এই মাসেই শিক্ষার্থী, অভিভাবকসহ আমরা পুরো জাতি অনিশ্চয়তার মধ্যে পড়েছি।
“আমরা এই হিংস্রতার মধ্যে শিক্ষার্থীদের বের হতে দিতে পারি না। এজন্যই অন্যায় এই হরতালের কারণে পরীক্ষার সময় পরিবর্তন করতে হচ্ছে।”
হরতালের বিরুদ্ধে দেশবাসীকে জেগে ওঠার আহ্বান জানিয়ে এই আওয়ামী লীগ নেতা বলেন, “আমরা হরতাল চাই না, পরীক্ষা-শিক্ষা চাই। দেশবাসী এই অন্যায়কারীদের (হরতালকারী) বিরুদ্ধে জেগে উঠলে তারা পরাজিত হবে।”
এসময় হরতালের কারণে জানুয়ারিতে শিক্ষার্থীদের হাতে নতুন বই পৌঁছাতে সমস্যা হবে বলে জানান শিক্ষামন্ত্রী।
তিনি বলেন, “আগামী ১ জানুয়ারি শিক্ষার্থীরা নতুন বই পাবে। কিন্তু এর আগেতো সব স্কুলে ওই বই বিতরণ করতে হবে।
“কিন্তু এই হরতালের মধ্যে বই পৌঁছানোর কাজ কতটুকু কঠিন সেটা আপনারা (সাংবাদিক) বোঝেন। এছাড়া বই ছাপানো-বাঁধানোসহ অন্যান্য কাজতো রয়েছেই।”
হরতালের কারণে এর আগে ৪ ও ৬ নভেম্বরের জেএসসি-জেডিসির চারটি বিষয়ের পরীক্ষা পিছিয়ে দেয়া হয়।
পাবলিক পরীক্ষার মধ্যে হরতাল না দিতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ বিরোধীদলকে অনুরোধ জানালেও তা কাজে আসেনি। ফলে শুরুতেই বাধার মুখে পড়ল অষ্টম শ্রেণির শিক্ষার্থীদের এই সমাপনী পরীক্ষা।
এনিয়ে দুদফায় মোট ১৫টি বিষয়ের পরীক্ষা পেছালো ।
জেএসডিতে ১০ নভেম্বর ইংরেজি দ্বিতীয় পত্র, ১১ নভেম্বর বিজ্ঞান/সাধারণ বিজ্ঞান এবং ১২ নভেম্বর ইসলাম ও নৈতিক শিক্ষা/ইসলাম শিক্ষা, হিন্দুধর্ম ও নৈতিক শিক্ষা/হিন্দু ধর্ম শিক্ষা, বৌদ্ধধর্ম ও নৈতিক শিক্ষা/বৌদ্ধধর্ম শিক্ষা এবং খ্রিস্টধর্ম ও নৈতিক শিক্ষা/খ্রিস্টধর্ম শিক্ষা বিষয়ের পরীক্ষা ছিল।
আর মাদ্রাসা বোর্ডের অধীনে জেডিসিতে ১০ নভেম্বর ইংরেজি (অনিয়মিত পরীক্ষার্থীদের জন্য) ও ইংরেজি প্রথম পত্র, ১১ নভেম্বর ইংরেজি দ্বিতীয় পত্র এবং ১২ নভেম্বর বাংলা সাহিত্য (অনিয়মিত পরীক্ষার্থীদের জন্য) ও বাংলা প্রথম পত্রের পরীক্ষা ছিল।
এবারের জেএসসি-জেডিসি পরীক্ষায় ১৯ লাখ দুই হাজার ৭৪৬ জন শিক্ষার্থী অংশ নিচ্ছে।
হরতালের কারণে গত এসএসসির ৩৭টি এবং এইচএসসির ৩২টি বিষয়ের পরীক্ষাসূচি পরিবর্তন করতে বাধ্য হয় কর্তৃপক্ষ।

শেয়ার