ইনিংস ও ৫১ রানে জিতল ভারত

indea
বাংলানিউজ ॥
শচীন টেন্ডুলকারের ব্যাটিং আরেকবার দেখতে পেল না ভক্তরা। কলকাতার ইডেন গার্ডেনে ইনিংস ও ৫১ রানে হেরে গেছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। ২১৯ রানে পিছিয়ে থেকে দ্বিতীয় ইনিংস খেলতে নেমেছিল ক্যারিবীয়রা। কিন্তু ১৬৮ রানেই গুটিয়ে গেছে ড্যারেন স্যামি বাহিনী। প্রথম ইনিংসে ৪ উইকেট নেওয়া মোহাম্মেদ সামি এবার নিয়েছেন ৫ উইকেট।
বৃহস্পতিবার ম্যাচের দ্বিতীয় দিন দলীয় ৮৩ রানে ভারত পাঁচ উইকেট হারালে ব্যাটিং উইকেটে নামেন রোহিত।
তার সঙ্গে ৭৩ রানের জুটি গড়ে সাজঘরে ফেরেন মহেন্দ্র সিং ধোনি (৪২)। এরপর অভিষেক টেস্টেই শতক হাঁকানো ১৪তম ভারতীয় হওয়ার মর্যাদা লাভ করেন রোহিত। ডানহাতি এই ব্যাটসম্যানকে যথাযথ সঙ্গ দিয়ে গেছেন অশ্বিন। ১৯৮ রানের অবিচ্ছিন্ন জুটি গড়ে তারা দিন শেষ করেছিল।
ম্যাচের তৃতীয় দিন শুক্রবার খেলতে নেমে আরও ৮২ রান যোগ করে তারা। ২৮০ রানের জুটি গড়ে ভারনন পারমলের কাছে এলবিডব্লুর ফাঁদে পড়েন রোহিত। এর আগে অশ্বিনকে নিয়ে সপ্তম উইকেটে দেশের হয়ে সর্বোচ্চ জুটির রেকর্ড গড়েন তিনি। আর টেস্ট ক্রিকেটের ইতিহাসে এই জুটি তৃতীয় সেরা।
অভিষেকেই ব্যক্তিগত সর্বোচ্চ ইনিংস খেলায় দেশীয় রেকর্ড গড়তে না পারলেও ১৭৭ রান করে দ্বিতীয় সেরা ব্যাটসম্যান রোহিত। ক্যারিয়ারের প্রথম টেস্টে ১৮৭ রান করে তার আগে আছেন শুধু শিখর ধাওয়ান।
এরপর ক্যারিয়ার সেরা ১২৪ রানের ইনিংস খেলে অষ্টম ব্যাটসম্যান হিসেবে অশ্বিন সাজঘরে ফিরলে স্বাগতিকরা বাকি দুই উইকেট হারায় ৯ রানে।
ক্যারিবীয়দের হয়ে সেরা বোলার শেন শিলিংফোর্ড। ৫৫ ওভার বল করে ৯ মেডেনসহ ১৬৭ রান দিয়ে ছয় উইকেট নেন। দুটি পান পারমল।
ব্যক্তিগত ৩৩ রানে ভুবনেশ্বর কুমারের কাছে টানা দ্বিতীয় ইনিংসে উইকেট বিলিয়ে দিলেন ক্রিস গেইল। এরপর কাইরন পাওয়েল ও ড্যারেন ব্রাভোর জুটিতে এমন হতাশাজনক ব্যাটিং কল্পনা করেনি ক্যারিবীয়রা। ৬৭ রানের এই জুটি ভাঙতেই সামির বোলিং তোপ। পাওয়েল ৩৬ রানে আউট হন। সফরকারীরা বাকি ৮ উইকেট হারায় ৬৭ রান যোগ করতে।
দুই ওপেনার বাদে সফরকারীদের হয়ে দ্বিতীয় ইনিংসে ব্রাভো ও শিবনারায়ন চন্দরপল ছাড়া আর কোনো ব্যাটসম্যান দুই অঙ্কের ঘরে পৌঁছাননি। ব্রাভো ইনিংস সর্বোচ্চ ৩৭ রান করেন। ৩১ রানে অপরাজিত ছিলেন চন্দরপল।
সামি দুই ইনিংসে ৯ উইকেট নিলেন। আগের ইনিংসে দুই উইকেট পাওয়া অশ্বিন এবার নিয়েছেন তিন উইকেট।

শেয়ার