১১ কোটি রুপিতে বিক্রি হলো গান্ধীর চরকা

gandhi
সমাজের কথা ডেস্ক॥ ছোট্টখাট্টো ওই একটা হাত-যন্ত্র৷ যা থেকে তৈরি মোটা কাপড় ভারতের স্বাধীনতা আন্দোলনে জোয়ার তুলেছিল৷
মোহনদাস করমচাঁদ গান্ধী যখন ভারত-ছাড়ো আন্দোলনের সেই দিনগুলিতে পুলের ইয়েরওয়াড়া জেলে বন্দি, তখনও সঙ্গী করেছিলেন সেই তাকেই৷ তার হাত-চরকা৷ যার শক্তি দেখে থমকে গিয়েছিল, কিছুটা বা পিছু হটতে বাধ্য হয়েছিল পশ্চিমের সেই অদম্য সাম্রাজ্যবাদীরা৷
গান্ধীর সেই হাত-চরকাই সোমবার ১,১০,০০০ পাউন্ডে অর্থাৎ ভারতীয় হিসাবে প্রায় ১১ কোটি রুপি৷ সংখ্যাটা চমকে দেয়ার মতোই৷ তবে শিক্ষাবিদ রেভারেন্ড ফ্লয়েড এ পাফারের থেকে উপহার পাওয়া এই চরকার দাম মুলকসের নিলামে এই অঙ্কেই পৌঁছেছে৷ ন্যূনতম দাম ধার্য করা হয়েছিল ৬০,০০০ পাউন্ড৷
ওই সংস্থারই নিলাম বিশেষজ্ঞ রিচার্ড ওয়েস্টউড ব্রুকস বলছেন, ‘এই চরকার সঙ্গে গান্ধীজিকে বিচ্ছিন্ন করা যায় না৷ এটি ছিল তার সবচেয়ে ভালোবাসার সম্পদ৷ গান্ধীর ব্যবহূত এর থেকে বেশি গুরুত্বপূর্ণ অন্য কিছু আমরা আর কোনও দিনই পাব না৷ তাই এই উন্মাদনা স্বাভাবিক৷’
এর আগেও গান্ধীর শেষ চিঠি, ব্যবহূত অন্যান্য সামগ্রী নিলামে উঠেছে৷ শেষবার যে ঐতিহাসিক নথির নিলাম হয় তার দাম উঠেছিল ২০,০০০ পাউন্ড৷
তবে এই চরকার মর্ম আলাদা৷ জেলের অন্ধকার কুঠুরিতেও সমানে চলত কাপড় বোনা৷ তাই, এ যেন ইতিহাসকে ছোঁয়া৷ শুধু ছোঁয়া নয়, আপন করে নেওয়া৷ তবে ক্রেতার নাম এখনো গোপনে৷

শেয়ার