সাতক্ষীরায় জেএসসি ও জেডিসি পরীক্ষা শুরু॥ শিক্ষার্থী ২৬ হাজার

আব্দুল জলিল সাতক্ষীরা॥ ১৮ দলীয় জোটের ডাকা হরতারের কারনে ৪ নভেম্বর এর পরিবর্তে গতকাল বৃহস্পতিবার সারা দেশের ন্যায় সাতক্ষীরায়ও শুরু হয়েছে জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট (জেএসসি) ও জুনিয়র দাখিল সার্টিফিকেট (জেডিসি) পরীক্ষা। এ বছর জেলার ৭টি উপজেলার ৩১টি কেন্দ্রে ২৬ হাজার ১শ ৮ জন শিক্ষার্থী অংশ নিয়েছে ।
জেলা প্রশাসন ও শিক্ষা অফিস সূত্রে জানা যায়, পরীক্ষা সুষ্ঠু, নকলমুক্ত ও সুশৃংখলভাবে গ্রহণ করার লক্ষ্যে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে সকল প্রস্তুতি গ্রহণ করা হয়েছে। একই সাথে পড়াশুনার সুবিধার্থে পরীক্ষার পূর্বে এবং পরীক্ষা চলাকালীন সময়ে সার্বক্ষণিক বিদ্যুৎ সরবরাহ নিশ্চিতকরণের ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। পরীক্ষা কেন্দ্রের ২০০ গজের মধ্যে জনসাধারণের প্রবেশ নিষিদ্ধ করার জন্য ১৪৪ ধারা জারি ও আইন-শৃংখলা রক্ষার্থে ম্যাজিস্ট্রেট নিয়োগ করা হয়েছে। পরীক্ষা কেন্দ্রের আশ-পাশে এক কিলোমিটারের মধ্যে সকল ফটোস্ট্্যাট মেশিন পরীক্ষা চলাকালীন সময়ের জন্য বন্ধ রাখার জন্য ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। গঠন করা হয়েছে প্রয়োজনীয় সংখ্যক ভিজিলেন্স টিম। প্রতিদিন সকাল ১০টা থেকে ১টা পর্যস্তু পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে।
এ বছর জেলায় নতুন কেন্দ্র হিসেবে সংযোজিত হয়েছে- কলারোয়া গার্লস পাইলট মাধ্যমিক বিদ্যালয়, তালার আমিরুন্নেছা মাধ্যমিক বিদ্যালয়, শ্যামনগরের নওয়াবেকী মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও আশাশুনির বড়দল আফতাব উদ্দীন কলেজিয়েট স্কুল। একই সাথে শ্যামনগর নওয়াবেকী বিড়ালক্ষী কাদেরিয়া মাদ্রাসা কেন্দ্র স্থগিত করা হয়েছে।
জেলা প্রশাসন কার্যালয় সূত্রে আরো জানা যায়, জেএসসি ও জেডিসি পরীক্ষায় ৭টি উপজেলার ৩শ ১৭টি মাধ্যমিক বিদ্যালয় এবং ২শ ১৬টি মাদ্রাসার ২৬ হাজার ১শ ৮ জন পরীক্ষার্থী অংশগ্রহণ করছে। এরমধ্যে জেএসসি পরীক্ষার্থীর সংখ্যা মোট ১৯ হাজার ৬শ ৭৬ জন এবং জেডিসি পরীক্ষার্থীর সংখ্যা ৬ হাজার ৪শ ৩২ জন। ৩১টি কেন্দ্রের ২৭টি ভেন্যুতে এ পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে।
জেলা প্রশাসক ড. মুহা. আনোয়ার হোসেন হাওলাদার পরীক্ষা চলাকালীন সময়ে নতুন করে আর কোন হরতাল না দেয়ার জন্য রাজনৈতিক দলগুলোর প্রতি আহবান জানান।

শেয়ার