বিএনপিকে নির্বাচন বয়কট না করার আহ্বান ইইউ’র

Khaleda
বাংলানিউজ ॥
আসন্ন জাতীয় নির্বাচন বয়কট না করতে প্রধান বিরোধী দল বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে আহ্বান জানিয়েছে বাংলাদেশে ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ)।
বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় গুলশানে খালেদা জিয়ার রাজনৈতিক কার্যালয়ে এক বৈঠকে ইউরোপীয় ইউনিয়নের রাষ্ট্রদূতরা এ আহ্বান জানান।
বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের একথা জানান ইউরোপীয় ইউনিয়নের রাষ্ট্রদূত উইলিয়াম হানা।
হানা বলেন, বাংলাদেশের গণতন্ত্রের জন্য আগামী কয়েক সপ্তাহ খুবই গুরুত্বপূর্ণ। ইউরোপীয় ইউনিয়ন বাংলাদেশের গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার জন্য সহায়ক ভূমিকা পালন করে আসছে। এরই ধারাবাহিকতায় বর্তমান প্রধানমন্ত্রী ও বিরোধী দলীয় নেতার সঙ্গে বৈঠক করার সিদ্ধান্ত নিয়েছি আমরা।
তিনি বলেন, আমরা দুই রাজনৈতিক দলের মাঝে বিবাদমান মুখোমুখি অবস্থান, দুই দলের মধ্যে সংলাপ না হওয়া, চলমান রাজনৈতিক সহিংসতা এবং সংখ্যালঘুদের ওপর হামলার বিষয়ে গভীরভাবে উদ্বিগ্ন।
তিনি বলেন, রাজনৈতিক সহিংসতা পরিহার করে আলোচনার মাধ্যমে সমস্যার সমাধান করতে হবে।
সুষ্ঠু ও অবাধ নির্বাচন অনুষ্ঠান বিষয়ে উইলিয়াম হানা বলেন, সব দলকে একটি অবাধ নির্বাচনের বিষয়ে আশ্বস্ত করতে হবে। নির্বাচনে ইউরোপীয় ইউনিয়ন সকল টেকনিক্যাল সাহায্য অব্যাহত রাখবে, নির্বাচন পর্যবেক্ষণ দল পাঠাতে ইউরোপীয় ইউনিয়ন প্রস্তুত এবং নির্বাচনের ফলাফল প্রধান রাজনৈতিক দলগুলোর কাছে গ্রহণযোগ্য হতে হবে।
হানা সাংবাদিকদের জানান, তারা খালেদা জিয়ার প্রতি নির্বাচন বয়কট না করার আহ্বান জানিয়েছেন। এছাড়া বিরোধী দলকে সংলাপে বসতে, নির্বাচন পূর্ব বা পরবর্তী সহিংসতা থেকে বিরত থাকতে এবং হরতালের মতো সহিংস কর্মসূচি থেকে বিরত থাকার আহ্বান জানানো হয়েছে।
বৈঠক শেষে বিএনপি’র ভাইস চেয়ারম্যান শমশের মবিন চৌধুরী সাংবাদিকদের বলেন, বিএনপি সরকারের সঙ্গে সংলাপ করতে প্রস্তুত রয়েছে। বিশেষ করে মহাসচিব পর্যায়ে বৈঠক করা যেতে পারে। এক্ষেত্রে দিন তারিখ স্থান ঠিক করে ডাকলেই বৈঠক হবে। কিন্তু সরকারের পক্ষ থেকে কোনো উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে না। এ সময় তিনি এক প্রশ্নের জবাবে বলেন, বিএনপি’র পক্ষ থেকে আগামী নির্বাচনী রূপরেখা নিয়ে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের কাছে চিঠি দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু তার জবাব দেওয়া হয়নি।
চিঠির জবাব পেলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলেও তিনি এসময় জানান।

কি ধরনের ব্যবস্থা নেওয়া হবে জানতে চাইলে তিনি বলেন, চিঠির উত্তরের ওপর ভিত্তি করেই ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

শেয়ার