নেটোর সামরিক মহড়ায় রাশিয়ার উদ্বেগ

neto
সমাজের কথা ডেস্ক॥ সাত বছরের মধ্যে সবচেয়ে বড় সামরিক মহড়া শুরু করেছে নর্থ আটলান্টিক ট্রিটি অর্গানাইজেশন বা নেটো বাহিনী। এ সপ্তাহে বাল্টিক দেশ এবং পোল্যান্ডে তারা এই মহড়া শুরু করেছে। মহড়ার স্থান রাশিয়ার সীমান্তবর্তী হওয়ায় বিষয়টি রাশিয়ার জন্য উদ্বেগজনক হয়ে উঠেছে।

যদিও নেটো স্পষ্ট করে জানিয়ে দিয়েছে, রাশিয়ার বিরুদ্ধে প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা আরো সুদৃঢ় করা তাদের এই সামরিক মহড়ার উদ্দেশ্য নয়।
মহড়ায় ন্যাটো জোট ছাড়াও অসদস্য দেশ সুইডেন, ফিনল্যান্ড এবং ইউক্রেনের মোট ছয় হাজার সেনা অংশ গ্রহণ করছে।
মহড়াটি নভেম্বরের ২ থেকে শুরু হয়েছে এবং এটি ৯ তারিখ পর্যন্ত চলবে। এর অংশ হিসাবে বৃহস্পতিবার পোল্যান্ডে সরাসরি গুলি করার মহড়া হবে।
নেটোর পক্ষ থেকে জানানো হয়, একটি কল্পিত দৃশ্যের ওপর ভিত্তি করে এই সামরিক মহড়া করা হচ্ছে। কল্পিত দৃশ্যটি এমন যে, শক্তি সম্পদ এবং অর্থনৈতিক পতনজনিত প্রতিযোগিতার কারণে কল্পিত দেশ বোথনিয়ার সৈন্যরা এস্তোনিয়াকে আক্রমণ করে বসলে তখন নেটো কীভাবে তা প্রতিরোধ করবে।
তবে মহড়াটি রাশিয়ার পশ্চিম সীমান্তের কাছাকাছি হওয়ায় দেশটির কর্মকর্তাদের কাছে বিষয়টি উদ্বেগজনক হয়ে উঠেছে। ঠাণ্ডা যুদ্ধের অবসানের পর নেটো যেভাবে বিস্তার লাভ করেছে তাতে তারা হয়তো জোটের অন্যদের নেতৃত্ব দেয়ার জন্য মস্কোর কাছে তাদের ক্ষমতা প্রদর্শন করছে।
নেটোর এই সামরিক মহড়ার মাত্র দুই মাস আগে সেপ্টেম্বরে বেলারুশকে সঙ্গে নিয়ে বড় আকারের সামরিক মহড়া করেছিল রাশিয়া। যা বাল্টিকের ছোট দেশগুলোকে দুঃশ্চিন্তায় ফেলে দিয়েছিল।
যদিও নেটো জোর দিয়ে জানিয়েছে, ওই ঘটনার সঙ্গে তাদের এই মহড়ার কোনা সম্পর্ক নেই।

শেয়ার