দেবহাটায় ইছামতি ভেড়িবাঁধে তীব্র ভাঙ্গন তলিয়ে যেতে পারে কয়েকটি গ্রাম

Debhata
দেবহাটা (সাতক্ষীরা) প্রতিনিধি॥ দেবহাটা উপজেলার সীমান্ত নদী ইছামতির ভেড়ীবাধে গতকাল মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ১১ টার দিকে সুশীলগাতী নামক স্থানের ভেড়ীবাধ ভেঙ্গে গেছে। জোয়ারের প্রবল ¯্রােতে ঐ এলাকার বাধটি ভেঙ্গে যায়। যার কারনে ইছামতি নদীর পানির চাপে ৭/৮ টি গ্রাম তলিয়ে ফসলী জমির ধান, মৎস্য ঘের সহ ব্যাপক ক্ষতির আশঙ্কা দেয়া দিয়েছে। প্রশাসনের কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। ভারতের সীমা রেখা বরাবর এই নদীটি প্রতিবছর ভেঙ্গে ভেঙ্গে বাংলাদেশের অনেক জমি নদী গর্ভে বিলীন হলেও কর্তৃপক্ষ কার্যকরী কোন পদক্ষেপ গ্রহন না করায় ভেড়ীবাধ ভাঙ্গতে ভাঙ্গতে শীবনগর এলাকার রাজনগর নামে একটি মৌজা ইতিমধ্যে নদী গর্ভে চলে গেছে। গ্রামবাসী জানান, চিংড়ি চাষীরা খেয়াল খুশী মতো ছোট বাঁধ দিয়ে মুল বাঁধের সর্বনাশ ডেকে এনেছে। বেড়ি বাঁধের গা ঘেঁষে পোনা ধরা এবং বালু তোলার কারণে বাঁধটি ক্রমেই ঝুঁকিপূর্ন হয়ে ওঠে। সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার ভারত সীমান্ত সংলগ্ন ইছামতি নদীর আগ্রাসী ভাঙ্গনের কারনে হুমকির মুখে জীবন কাটাচ্ছে দেবহাটা এলাকাসহ আশে পাশের কয়েকটি গ্রামবাসী। বর্ষা মৌসুমে প্রতিবছরের ন্যায় ইছামতি নদীর দেবহাটার সুশীলগাতি, শীবনগর, টাউনশ্রীপুর, ভাতশালা, বসন্তপুর ও খানজিয়া এলাকার কয়েকটি স্থানে ভেড়িবাঁধে তীব্র ভাঙ্গন দেখা দেয়। দেবহাটা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আ.ন.ম তরিকুল ইসলাম ভাঙ্গন এলাকা পরিদর্শন করেন। তিনি বলেন, ভেড়ী বাঁধ মারাত্মক আকার ধারন করেছে। স্থানীয় লোকজনের স্বেচ্ছাশ্রমের ভিত্তিতে এবং তার কাছে থাকা ৫০০ প্লাস্টিকের বস্তা দিয়ে বালু ভর্তি করে ভাঙ্গন রোধ করার চেষ্টা করা হচ্ছে। এ ছাড়া পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী ও উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষকে জরুরী ব্যবস্থা নেয়ার জন্য বলা হয়েছে। হুমকির মুখে পড়া গ্রামগুলি হচ্ছে সুশীলগাতি, শিবনগর, ঘলঘলিয়া, টাউনশ্রীপুর, চরশ্রীপুর ও দেবহাটাসহ আটটি গ্রাম। এসব গ্রামের মানুষ সহায় সম্পদ নিয়ে বাড়ি ছেড়ে যাবার জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছেন বলে জানা গেছে।

শেয়ার