বেনাপোল বন্দর শ্রমিকদের দু’গ্রুপে সংঘর্ষ ॥ অফিস ভাংচুর আহত ২২

benapol
বেনাপোল (যশোর) প্রতিনিধি॥ দেশের বৃহত্তর স্থলবন্দর বেনাপোল। বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে আমদানি রফতানি বানিজ্যে পন্য লোড আনলোডিংয়ের জন্য রেজিং-৮৯১ ও ৯২৫ নামে ২টি শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারন শ্রমিকরা হান্ডলিংয়ের কাজ করে আসছেন। শ্রমিকদের টাকা আত্মসাতসহ বকেয়া বেতনের দাবিতে রোববার সকালে ৮৯১ বন্দর হ্যান্ডলিং শ্রমিক ইউনিয়নের দু গ্র“পের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এতে উভয় পরে ২২শ্রমিক নেতা কর্মি আহত হয়েছেন। গুরুতর আহত হয়েছে জিয়া ও মোস্ত নামে ২শ্রমিক। জিয়া মোস্ত পরে লোকজন অফিস ভাংচুর করেছে বলে জানিয়েছে সাধারন শ্রমিকরা। ঘটনাস্থল থেকে ৩টি তাজা বোমা উদ্ধার করা হয়েছে।
পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, রোববার সকালে শ্রমিক ইউনিয়নের সাবেক সভাপতি গোলাম মোস্তফা ও সাধারন সম্পাদক জিয়ায়ুর রহমানের নেতৃত্বে ১০/১২জনের একদল শ্রমিক অফিস দখলে নিতে যায়। এসময় শ্রমিক ইউনিয়নের বর্তমান সভাপতি কলিমোল্লা-ও জাহাঙ্গীর অফিসে মিটিং চলাকালে দু গ্র“পের মধ্যে সংঘর্ষে ,শ্রমিক নেতা কলিম্ল্লোা, নকিমোল্লা, মিলন হোসেন,হাসানুর রহমান, সোহারাব, জাহাঙ্গীর, খাইরুল, নুরআলী, জানেআলম, সাদ্দাম, জিয়ায়ুর রহমান জিয়া ও মোস্তফা মারাতœক আহত হয় পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে জিয়া মোস্তফাকে গুরুতর জখম অবস্থায় উদ্ধার করে নাভারন হাসপাতালে প্রেরন করে। অপর আহতরা বিভিন্ন কিনিকে চিকিসা নিচ্ছে।
পোর্ট থানার উপ পুলিশ পরিদর্শক আব্দুল আজিজ জানান,পুলিশ পরিস্থিতি নিযন্ত্রনে নিয়েছেন। তবে শ্রমিক দ্বন্দ্বের বিষয়ে এখনও কোন অভিযোগ দায়ের করা হয়নি।
৮৯১ শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম জানায়, পূর্বের কমিটির জিয়া মোস্তর কাছে শ্রমিকরা ৩২ল ৩৬হাজার টাকা পাবে। আকস্মিকভাবে রোববার জিয়া মোস্ত স্বদলবলে বোমা মেশিন নিয়ে শ্রমিক অফিসে হামলা ও ভাংচুর চালায় এসময় ২০/২২জন শ্রমিক নেতা কর্মি আহত হয়েছে।

শেয়ার