নিউজিল্যান্ডকে ফের বাংলাওয়াশ

Ullas
সমাজের কথা ডেস্ক॥ মিরপুরে প্রথম দুই ওয়ানডে সহজেই জিতে সিরিজ পানসে করে ফেলা বাংলাদেশের প্রয়োজন ছিল বড় ধরনের চ্যালেঞ্জের। ফতুল্লায় শেষ ম্যাচে নিউ জিল্যান্ডের বিরাট সংগ্রহ তাড়া করে সেই চ্যালেঞ্জে জিতে সিরিজের মধুর সমাপ্তি ঘটালো স্বাগতিকরা। আর এর ফলে ফের বাংলাওয়াশের শিকার হলো নিউজিল্যান্ড।
৩০৮ রানের ল্য তাড়া করতে নেমে সবসময়ই কপথে ছিল মুশফিক বাহিনী। শামসুর রহমান আর নাঈম ইসলাম দৃঢ় ভিত্তি গড়ে দেবার পর নাসির হোসেনের ঠাণ্ডা মাথার ‘ফিনিশিং’ -এ ৪ বল বাকি থাকতেই ৪ উইকেটে জিতে যায় তারা।

২০১০ সালের পর নিউ জিল্যান্ড আরেকবার পড়লো সবগুলো ম্যাচে পরাজয়ের লজ্জায়। সেবার ৫ ম্যাচের সিরিজে অতিথিদের চারটিতেই হারায় স্বাগতিকরা। বৃষ্টির কারণে মাঠে গড়ায়নি অন্য ম্যাচটি।

এর আগে কেনিয়ার বিপে দু’বার, জিম্বাবুয়ে, আয়ারল্যান্ড, স্কটল্যান্ড ও ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপে একবার করে সিরিজের সব ম্যাচ জিতেছিল বাংলাদেশ।

রোববার সকালে ফতুল্লার খান সাহেব ওসমান আলী স্টেডিয়ামে টসে জিতে অতিথিদের ব্যাট করতে পাঠিয়েছিলেন মুশফিকুর রহিম। রস টেইলরের নবম শতকে ৫ উইকেটে ৩০৭ রান করে নিউ জিল্যান্ড। জবাবে ৪৯ ওভার ২ বলে ৬ উইকেট হারিয়ে ল্েয পৌঁছে যায় বাংলাদেশ।

জিয়াউর রহমানের সঙ্গে শামসুর রহমানের ৬১ রানের উদ্বোধনী জুটি বাংলাদেশকে উড়ন্ত সূচনা এনে দেয়। মিচেল ম্যাককেনাগানের বল এগিয়ে এসে মারতে গিয়ে থার্ডম্যানে অ্যাডাম মিল্নের হাতে তামিম ইকবালের বদলে খেলতে নামা জিয়াউর (২২) ধরা পড়লে ভাঙে ৭ ওভার ৪ বল স্থায়ী জুটি।

দ্বিতীয় উইকেটে মুমিনুল হকের সঙ্গে ৬৫ রানের আরেকটি চমৎকার জুটি উপহার দেন শামসুর। ৩৩ বলে ৪টি চারের সাহায্যে ৩২ রান করে মুমিনুল অ্যারন ডেভসিচের ফিরতি ক্যাচে পরিণত হন।

নাথান ম্যাককালামের পরের ওভারে অধিনায়ক মুশফিকুর রহিম স্কয়ার লেগে টেইলরকে ক্যাচ দিলেও দলকে ভালো অবস্থানে নিয়ে যান শামসুর ও নাঈম ইসলাম। নাঈমের সঙ্গে ৭৫ রানের জুটি গড়ে দলকে ৩ উইকেটে ২০৪ রানের দৃঢ় ভিতের ওপর দাঁড় করিয়ে মাঠ ছাড়েন শামসুর।

কোরি অ্যান্ডারসনের বলে উইকেটরক লুক রঞ্চির গ্লাভসবন্দী হওয়া এই ব্যাটসম্যান মাত্র ৪ রানের জন্য শতক পাননি। ৯৬ রান করা শামসুরের ১০৭ বলের ইনিংসে ৭টি চার ও ৪টি ছক্কা।

নাসির হোসেনের সঙ্গে নাঈমের ৫০ রানের আরেকটি চমৎকার জুটি দলকে নিউ জিল্যান্ডের বিপে টানা সপ্তম জয়ের দিকে নিয়ে যায়। ৭৪ বলে ৫টি চারের সাহায্যে ৬৩ রান করা নাঈম সাজঘরে ফিরেন রান আউট হয়ে।

এরপর মাহমুদুল্লাহ রিয়াদের (১৬) বিদায় স্বাগতিকদের একটু চাপে ফেললেও নাসির হোসেন দলকে স্বস্তির জয় এনে দেন। ৩৯ বলে ৪৮ রানে অপরাজিত থাকেন নাসির। উইকেটে তার সঙ্গে থাকা সোহাগ গাজীর চারে আসে কাঙ্খিত জয়।

নিউ জিল্যান্ডের বিপে এটি বাংলাদেশের সর্বোচ্চ রান। এ সিরিজের প্রথম ওয়ানডের ২৬৫ রান ছিল আগের সর্বোচ্চ।

আর এটি বাংলাদেশের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ রানের ল্য তাড়া করে জেতার ঘটনা। এর আগে ২০০৯ সালের অগাস্টে জিম্বাবুয়ের বিপে বুলাওয়ায়োতে বাংলাদেশ জিতেছিল ৩১৩ রানের ল্য তাড়া করে।

সকালে টম ল্যাথামের সঙ্গে অ্যান্টন ডেভসিচের ৬৬ রানের উদ্বোধনী জুটি নিউ জিল্যান্ডকে ভালো সূচনা এনে দিয়েছিল। মাহমুদুল্লাহর বলে শর্ট ফাইন লেগে আব্দুর রাজ্জাকের হাতে ক্যাচ দিয়ে ডেভসিচ বিদায় নেয়ার পর বেশীণ টেকেননি তিন নম্বর ব্যাটসম্যান গ্রান্ট এলিয়ট (৩)। রাজ্জাকের বলে মিড অনে ক্যাচ দিয়ে বিদায় নেন তিনি।

দলীয় রান একশ’ পেরুনোর পর সাজঘরের পথ ধরেন ল্যাথামও। ৭৩ বলে ৪৩ রান করা এই ওপেনারকে রুবেলের বলে গ্লাভসবন্দী করেন মুশফিকুর রহিম।

এরপর সিরিজে প্রথমবারের মতো খেলতে নামা কলিন মানরোর সঙ্গে টেইলরের ১৩০ রানের জুটিতে অতিথিদের বড় সংগ্রহের ভিত গড়ে উঠে। ৭৭ বলে ৭টি চার ও ২টি ছক্কার সাহায্যে ৮৫ রান করা মানরোকে বিদায় করে জুটি ভাঙেন মাহমুদুল্লাহ।

এরপর কোরি অ্যান্ডারসন (১) সোহাগ গাজীর বলে পুল করতে গিয়ে শর্ট থার্ড ম্যানে জিয়াউর রহমানের হাতে ক্যাচ দিলে স্বস্তি ফেরে বাংলাদেশ শিবিরে।

২৬তম ওভারে জীবন পাওয়া টেইলর অপরাজিত থাকেন ১০৭ রানে। ওই ওভারের ব্যক্তিগত তিন রানে টেইলরের ফিরতি ক্যাচ ধরতে পারেননি রুবেল হোসেন।

টেইলরের ৯৩ বলের ইনিংসে ছিল ৯টি চার ও ৩টি ছক্কা। ছক্কা তিনটি এসেছে অফস্পিনার সোহাগ গাজীর করা ৪৭তম ওভারে পর পর তিন বলে।

বাংলাদেশের বিপে দ্বিতীয় শতক পাওয়া টেইলরের ঝড়ো ব্যাটিংয়ে শেষ ১৫ ওভারে ১৪৬ রান তুলে নেয় অতিথিরা। লুক রঞ্চির সঙ্গে তার অবিচ্ছিন্ন ষষ্ঠ উইকেট জুটিতে ৩৪ বলে উঠে ৭৫ রান।

৩৬ রানে ২ উইকেট নিয়ে বাংলাদেশের সেরা বোলার মাহমুদুল্লাহ।

সংপ্তি স্কোর:

নিউ জিল্যান্ড: ৫০ ওভারে ৩০৭/৫ (ডেভসিচ ৪৬, ল্যাথাম ৪৩, এলিয়ট ৩, টেইলর ১০৭*, মানরো ৮৫, অ্যান্ডারসন ১, রঞ্চি ১৩*; মাহমুদুল্লাহ ২/৩৬, রুবেল ১/৩৮, রাজ্জাক ১/৫৭ সোহাগ ১/৬৭)

বাংলাদেশ: ৪৯.২ ওভারে ওভারে ৩০৯/৬ (শামসুর ৯৬, জিয়া ২২, মুমিনুল ৩২, মুশফিকুর ২, নাঈম ৬৩, নাসির ৪৪*, মাহমুদুল্লাহ ১৬, সোহাগ ১১*; ম্যাককেনাগান ২/৬৫, ডেভসিচ ১/৩৬, নাথান ১/৪৪, কোরি ১/৫৬)

ম্যাচ সেরা: শামসুর রহমান

সিরিজ সেরা: মুশফিকুর রহিম

শেয়ার