জেলহত্যা দিবসে যশোর আওয়ামী লীগের আলোচনা সভা ॥ জাতীয় চার নেতার হত্যাকারীদের চাকরি দিয়ে জিয়া পুরস্কৃত করেন———শাহীন চাকলাদার

Shahin
নিজস্ব প্রতিবেদক॥ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সদর উপজেলা চেয়ারম্যান শাহীন চাকলাদার বলেছেন, যারা জাতীয় চার নেতাকে হত্যা করেছিল জিয়াউর রহমান তাদেরকে বিভিন্ন দূতাবাসে চাকরি দিয়ে পুরস্কৃত করেছিলেন। তিনি শুধু তাদের পুরস্কৃত করেননি, যুদ্ধাপরাধীদের এমপি-মন্ত্রী বানিয়ে তাদেরকে পুরস্কৃত করেছিলেন। আর এখন খালেদা জিয়া বলছেন, তিনি মতায় গেলে সকল যুদ্ধাপরাধীকে মুক্ত করে দেবেন। শাহীন চাকলাদার বলেন, বিরোধী দল সমঝোতায় বিশ্বাস করে না। তাই সংলাপের জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তাদের আহবান জানালেও তাতে সাড়া না দিয়ে ২৭,২৮,২৯ অক্টোবর হরতাল দিয়ে ২০ জন মানুষের জীবন কেড়ে নিয়েছেন। রাষ্ট্রীয় সম্পদ নষ্ট করেছেন, দেশের ব্যবসা-বাণিজ্য ধ্বংস করেছেন। কিন্তু দাবি আদায় করতে পারেননি। ৪ থেকে ৬ নভেম্বর হরতাল দিয়ে তারা এবার কত জনকে মেরে ফেলবে কে জানে। তবে যশোরে কোন ধরনের নৈরাজ্য বরদাস্ত করা হবে না বলে তিনি হুশিয়ারি দিয়েছেন। রোববার বিকেলে জেলহত্যা দিবসে যশোর জেলা আওয়ামী লীগ আয়োজিত এক আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিলে তিনি একথা বলেন। বিকেলে শহরের গাড়ীখানাস্থ দলীয় কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি সাবেক সাংসদ পীযুষ কান্তি ভট্টাচার্য। প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি এসএম কামরুজ্জামান চুন্নু, সাংগঠনিক সম্পাদক ঝিকরগাছা উপজেলা চেয়ারম্যান মনিরুল ইসলাম মনির, আফজাল হোসেন, দপ্তর সম্পাদক মীর জহুরুল ইসলাম, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক খয়রাত হোসেন, বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক আব্দুল খালেক, তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক অ্যাড. আসাদুজ্জামান আসাদ, আইন বিষয়ক সম্পাদক আব্দুল কাদের, যুব ও ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক মুস্তাফিজুর রহমান মুকুল, উপ প্রচার সম্পাদক ফারুক আহম্মেদ কচি, সদস্য রেজাউল ইসলাম রেজা, ত্রাণ ও দুর্যোগ বিষয়ক সম্পাদক খায়রুজ্জামান খসরু, শহর শাখার ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক ইয়াসিন সিদ্দিকী, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হাসান ইমাম লাল, সদর উপজেলা শাখার সাংগঠনিক সম্পাদক শাহারুল ইসলাম, জেলা যুবলীগের সহসভাপতি মুনির হোসেন টগর, প্রচার সম্পাদক জাহিদ হোসেন মিলন, স্বাস্থ্য বিষয়ক সম্পাদক এহসানুল হক লিটু, জেলা যুবমহিলা লীগের সভাপতি মঞ্জুন্নাহার নাজনীন সোনালী, সাধারণ সম্পাদক শেখ রোকেয়া পারভীন ডলি, জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক এসএম মাহমুদ হাসান বিপু ও সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক শফিকুল ইসলাম জুয়েল, জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আরিফুল ইসলাম রিয়াদ, সাধারণ সম্পাদক আনোয়ার হোসেন বিপুল, সহসভাপতি নিয়ামত উল্লাহ প্রমুখ।

শেয়ার