মোল্লাহাটে গুদাম থেকে ২ কোটি টাকার খাদ্যশস্য চুরি ॥ একমাত্র আসামি নিখোঁজ!

bagherhut
মোল্লাহাট (বাগেরহাট) প্রতিনিধি॥ মোল্লাহাট উপজেলার গাড়ফা বাজার গুদাম থেকে ২ কোটি ৩লক্ষ ৭১ হাজার টাকার খাদ্যশস্য চুরির ঘটনায় দীর্ঘ গড়িমসির পর মামলা হলেও নিখোঁজ রয়েছেন একমাত্র আসামী ওসি ফুড মিলন কুমার মন্ডল।
৪১৯.১০২ মেঃটন চাল, ১৩২.৩৯৮মেঃটন গম ও ১৩৭.২৭৪ মেঃটন ধান গুদামে ঘাটতি থাকার কারণে মাত্র ১ জনকে আসামী করায় ঘটনাটি রহস্যজনক বলে ধারণা করা হচ্ছে।
তথ্যানুসন্ধানিতে জানা যায়, ইমদাদুর রহমান বাগেরহাটে জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রকের দায়িত্ব গ্রহণের পর তার নেতৃত্বে ওসি ফুড মিলন কুমার মন্ডল (গাড়ফা বাজার খাদ্যগুদাম), উপ-পরিদর্শক স্বর্ণালী বিশ্বাস সহ কয়েকজনের সি›িডকেট বিভিন্ন অনিয়ম ও দুর্নীতির মাধ্যমে অর্থ লোপাট করায় গুদামের খাদ্যশস্য ঘাটতি দেখা দেয়। এমতাবস্থায় গত ৯ সেপ্টেম্বর এই গুদামে ওসি ফুড হিসাবে দায়িত্ব গ্রহণের জন্য আঃ জলিল আসেন। ওই সময় জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক ইমদাদুর রহমান, উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক বেগম লায়লা আফরোজা ও ওসি ফুড মিলন কুমার মন্ডল সহ অন্যান্যদের উপস্থিতিতে আঃ জলিল বস্তা/খামাল গুনে না নিয়ে গুদামের সকল খাদ্য শস্য ওজন করে দায়িত্ব গ্রহণের শর্ত দেন। এসময় সম্ভাব্য বিপদ হতে মুক্তির জন্য ডিসি ফুড ইমদাদুর রহমান ওই দিন স›ধ্যা ৭টার দিকে ওসি ফুড মিলন কুমার মন্ডলকে অন্যত্র সরিয়ে দেন। এর অল্প কিছুক্ষণের মধ্যে গুদামে খাদ্যশস্য ঘাটতির সংবাদ পেয়ে উপজেলা প্রশাসন উপস্থিত হলে তাদেরকে ডিসি ফুড বলেন- ওসি ফুড কিছুক্ষণ আগে দেয়াল টপকিয়ে পালিয়ে গেছে। সংশ্লিষ্ট একাধিক সূত্র ও মিলন কুমারের মা বিজলী মন্ডল (৭০) জানান- প্রায় এক/দেড় মাস পূর্বে ওসি ফুড মিলন কুমার মন্ডল মোটর সাইকেল দুর্ঘটনায় তার পা ভেঙ্গে যায়। যে কারণে পায়ের গোড়ালী থেকে প্রায় কোমর পর্যন্ত ঢালাই ব্যান্ডেজ নিয়ে গোডাউন কম্পাউ›েডর ভিতর তার নিজস্ব বাসায় শুয়ে সময় কাটাতেন। অতটা অসুস্থ ব্যক্তি ৬/৭ ফুট উচু দেয়াল ও তার উপর আরো ৩/৪ ফুট উচু কাটা তারের বেস্টনি আদৌ টপকাতে পারে না। নিশ্চয় তাকে যেকোন বাহনে করে একমাত্র সদর গেট দিয়ে বের হতে হয়েছে। ঐ ঘটনার পর তাৎক্ষণিক মামলা না করে গড়িমসির পর সিন্ডিকেটের সকলকে বাদ দিয়ে একমাত্র ওসি ফুড মিলন কুমার মন্ডলকে আসামি করে গত ১৯ সেপ্টেম্বর মোল্লাহাট থানায় উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক বেগম লায়লা আফরোজা বাদী হয়ে একটি মামলা করেন। যার নং- ১৪, ধারা ৪২০/৪০৬/৪০৯। এ ঘটনার যথাযথ তদন্ত পূর্বক প্রকৃত অপরাধীদের বিচার ব্যবস্থার দাবি জানিয়েছেন সচেতন মহল।

শেয়ার