পুলিশের দায়িত্বহীনতায় দেড়মাস জেলের ঘানি টানতে হল এক কৃষককে

সাতক্ষীরা প্রতিনিধি॥ সাতক্ষীরায় পুলিশের দায়িত্বহীনতার কারনে মিথ্যে মামলার আসামী হয়ে এক দরিদ্র কৃষককে দেড় মাস জেলের ঘানি টানতে হয়েছে। স্থানীয় দুই সহোদর রাজনৈতিক নেতার মদদে তালা থানা পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে জেল হাজতে প্রেরণ করে। গতকাল বুধবার সাতীরা প্রেসকাবে এক সংবাদ সম্মেলনে এই অভিযোগ করেন জেলার তালা উপজেলার পাঁচরখী গ্রামের মৃত ছিয়াম উদ্দিন গোলদারের ছেলে কৃষক সোহরাব হোসেন গোলদার।
সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে সোহরাব গোলদার বলেন, চলতি বছরের ৫ জুলাই রাতে তালা উপজেলার পাঁচরখী গ্রামের আবুল কাশেম শেখের স্বামী পরিত্যাক্তা মেয়ে রনজিলা খাতুন (২৫) বাড়ির পাশে খেজুর গাছের সাথে গলায় ওড়না পেচিয়ে আত্মহত্যা করে। পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য সাতীরা সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠায়। মেয়েকে হত্যা করা হয়েছে বলে অভিযোগ এনে পরদিন রনজিলার পিতা অজ্ঞাতনামা ২/৩ জনকে আসামী করে তালা থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। এঘটনার পর ২৬ জুলাই রাতে তালা থানার এএসআই সালেকুজ্জামান বাড়ি থেকে তাকে ডেকে থানায় নিয়ে আসেন। পরদিন ২৭ জুলাই সেসহ আরও এক ব্যক্তিকে ওই মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে কোর্টে চালান দেয়। জেলে থাকাকালিন সময়ে তার পরিবারের সদস্যরা খেয়ে না খেয়ে দিন কাটিয়েছে।
সংবাদ সম্মেলনে সোহরাব আরও বলেন, দেড় মাস জেলে থাকার পর জামিনে ছাড়া পেয়ে বাড়িতে এসে জানতে পারি যে, ময়না তদন্ত রির্পোটে রনজিলা আত্মহত্যা করেছে বলে প্রমানিত হয়েছে। পরে পুলিশ তাকে ওই মামলার দায় থেকে অব্যহতি দেয়। তিনি অভিযোগ করে বলেন, একই গ্রামের আলী আহম্মাদের ফারুক হোসেন ও সুলতানের মদদে পুলিশ তাকে ওই মিথ্যে মামলায় গ্রেফতার করে জেলে পাঠায়। কিন্ত কি অপরাধে তাকে দেড় মাস জেল খাটতে হয়েছে আজও তা জানতে পারেনি। প্রশাসনের এমন দায়িত্বহীনতার কারনে আর যাতে কোন নির্দোষ ব্যক্তিকে জেলের ঘানি টানতে না হয় সে জন্য তিনি পুলিশ প্রশাসনসহ সংশ্লিষ্ট সকলের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন।

শেয়ার