যশোরে হরতালে সাড়া পায়নি বিএনপি-জামায়াত ॥ রাজপথ ছিল আ’লীগের দখলে

sahin vhi
নিজস্ব প্রতিবেদক॥ টানা ৬০ ঘণ্টার হরতালে তৃতীয় দিনেও যশোরে সাড়া পায়নি বিএনপি নেতৃত্বাধীন ১৮ দলীয় জোট।প্রথম দিন সকালের দিকে হরতালের কিছুটা প্রভাব পড়লেও গত দু’দিন এর চিত্র ছিল একেবারে ভিন্ন। বিশেষ করে গতকাল হরতালের কোন চিহ্ন দেখা যায়নি। সকাল থেকে শহরে যানবাহন ওলোক চলাচল শুরু হয়। আর বেলা গড়ার সাথে সাথে পুর্বের চেহারায় ফিরে আসে শহর। এদিকে প্রথম দিক থেকে শহরের রাজ পথ দখলে রাখে আওয়ামী লীগ। শেষ দিনে তাদের অবস্থান ছিল আরো জোরাল। জেলা আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ, কৃষকলীগ, মহিলা লীগ, যুবমহিলা লীগ হরতাল প্রত্যাখান করে রাজপথে অবস্থান নেয়। শেষ দিনে হরতাল বিরোধী মিছিলের নগরিতে পরিণত হয়গোটা শহর। মুলত জেলা আওয়ামী লীগের শক্ত অবস্থানে টিকতে পারিনি ১৮ দলীয় জোট। জনগণের দুর্ভোগ দিতে হরতাল ডাকলেও গত দু’ দিন মাঠে ছিল না বিএনপি জামায়াত।
বেলা ১১ টার দিকে জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সদর উপজেলা চেয়ারম্যান শাহীন চাকলাদারের নেতৃত্বে দলীয় কার্যালয়ের সামনে থেকে বিক্ষোভ মিছিল বের হয়ে শহরের বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে।
এসময় মিছিলে ছিলেন জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি পীযুষ কান্তি ভট্টাচার্য, সহসভাপতি ও পৌর মেয়র এসএম কামরুজ্জামান চুন্নু, সহসভাপতি অ্যাড. জহুর আহম্মেদ, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক অ্যাড. আলী রায়হান, সিনিয়র সদস্য হায়দার গণি খান পলাশ, সাংগঠনিক সম্পাদক আফজাল হোসেন, দপ্তর সম্পাদক মীর জহুরুল ইসলাম, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক খয়রাত হোসেন, বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক আব্দুল খালেক, তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক অ্যাড. আসাদুজ্জামান আসাদ, আইন বিষয়ক সম্পাদক আব্দুল কাদের, যুব ও ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক মুস্তাফিজুর রহমান মুকুল, উপ প্রচার সম্পাদক ফারুক আহম্মেদ কচি, সদস্য রেজাউল ইসলাম রেজা, ত্রাণ ও দুর্যোগ বিষয়ক সম্পাদক খায়রুজ্জামান খসরু, শহর শাখার ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক ইয়াসিন সিদ্দিকী, সদর উপজেলা শাখার সাংগঠনিক সম্পাদক শাহারুল ইসলাম, জেলা যুবলীগের সহসভাপতি মুনির হোসেন টগর, প্রচার সম্পাদক জাহিদ হোসেন মিলন, স্বাস্থ্য বিষয়ক সম্পাদক এহসানুল হক লিটু, জেলা মহিলা লীগের সভাপতি নুর জাহান ইসলাম নিরা, মহিলা সংস্থার জেলা চেয়ারম্যান লাইজু জামান, জেলা যুবমহিলা লীগের সভাপতি মঞ্জুন্নাহার নাজনীন সোনালী, সাধারণ সম্পাদক শেখ রোকয়ো পারভীন ডলি, জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক এসএম মাহমুদ হাসান বিপু ও সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক শফিকুল ইসলাম জুয়েল, জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আরিফুল ইসলাম রিয়াদ, সাধারণ সম্পাদক আনোয়ার হোসেন বিপুল, সহসভাপতি নিয়ামত উল্লাহ, সাইদুজ্জামান বাবু,জাবের হোসেন জাহিদ, রবিউল ইসলাম, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শাহজাহান কবির শিপলু, তরিকুল ইসলাম জনি, সাংগঠনিক সম্পাদক কাজী তৌহিদুর রহমান জুয়েল, ক্রীড়া সম্পাদক মাসুদুর রহমান মিলন, অর্থ সম্পাদক রবিউল ইসলাম রবি, শিক্ষা ও পাঠচক্র মেহেদি হাসান রনি, তথ্য ও প্রযুক্তি সম্পাদক রওশন ইকবাল শাহী, মুক্তিযোদ্ধ বিষয়ক সম্পাদক সজিবুর রহমান, সাহিত্য সম্পাদক সাগর রহমান, উপ গণযোযোগ সম্পাদক সবুজ বিপ্লব, সদস্য এসএম জাবেদ উদ্দিন, আলমগীর হোসেন, ইয়াসিন কাজল, সালসাবিল আহম্মেদ, পুরাতন হল শাখার সভাপতি আলমগীর হোসেন বিদ্যুৎ ও সাধারণ সম্পাদক অনুপ সরমা প্রমুখ।

শেয়ার