মণিরামপুরে আইন শৃংঙ্খলা বাহিনীর যৌথ অভিযান : আটক ২৩

নিজস্ব প্রতিবেদক, মণিরামপুর॥ আইন-শৃংঙ্খলা বাহিনীর কঠোর অবস্থানে মণিরামপুর উপজেলায় কোথাও নাশকতা চালাতে পারেনি হরতালকারীরা। এদিন বিজিবি, র‌্যাব ও পুলিশের যৌথ অভিযানে পিকেটিং ও নাশকতার অভিযোগে বিএনপি-জামায়াতের ২৩ নেতাকর্মীকে আটক করা হয়। সোমবার হরতালকারীরা রাস্তায় কাঠের গুড়ি দিয়ে জনসাধারনের চলাচলে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টির জন্য পিকেটারদের লাঠিচার্জ করা হয়। এতে অন্তত: বিএনপি-জামায়াতের ৩০ জন আহত হয়েছে।
প্রত্যক্ষদর্শীদের ভাষ্যমতে, রোববার হরতালের প্রথম দিন উপজেলার কুয়াদা বাজারে পুলিশ দায়িত্বপালনকালে বিএনপি জামায়াতের হামলায় ৫ পুলিশ আহত হয়। এছাড়া উপজেলার বেগারিতলা, চালকিডাঙ্গা, হাজরাকাটি, গোপালপুরসহ সাধারণ মানুষকে জিম্মি করে রাস্তায় কাঠের গুড়ি ফেলে চলাচলে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করে। সোমবার আটকৃতদের মধ্যে যাদের পরিচয় পাওয়া গেছে তারা হলো উপজেলার কুয়াদা, বেগারিতলা, চালকিডাঙ্গা ও হাজরাকাটি এলাকার তাহের হোসেন, জাকির হোসেন, মাহাবুব, আলী, মিকাইল, জালাল, ওয়াদুদ, আজিজুর, আব্বাস, শামিম, স্বপন, মিন্টু, জুয়েল, হাদিউর, আকরামুল, হাবু, মামুন। এদিন পিকেটারদের লঠিচার্জে ৩০ জন আহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। এদের মধ্যে ৩ জনকে মণিরামপুর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও কুয়াদার মনোয়ারা কিনিকসহ বিভিন্ন কিনিকে ভর্তি করা হয়েছে। এরা হলো উপজেলার আব্দুল খালেক, মোহনপুর গ্রামের কৃষক শাহাদত হোসেন, বিজয়রামপুর গ্রামের ইদ্রিস আলী, কুয়াদা এলাকার শ্যামল কুমার, জহিরউদ্দীন, বাস চালক রজব আলী, ওই এলাকার শ্যামপদ, এজাহার আলী, শ্যামল দাস, জাকির হোসেন, বাবু, সাহেব আলী, আয়ুব আলী, ইব্রাহিম, ইসলাম, বিল্লাল, ছোট্ট বিশ্বাস, গৃহবধূ আঞ্জুয়ারা, লিয়াকত আলী, সিরাজুল ইসলাম, শহিদুল, আব্দুল মজিদ, ইয়াকুব, শফিউদ্দীন, শহিদুল, ইউসুফ, ফরহাদ, রিপন, আলমগীর ও হাবিবুর রহমান। এদিকে, র‌্যাব, পুলিশ এবং বিজিবি’র যৌথ অভিযানের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বিজিবি যশোরের অধিনায়ক মতিউর রহমান, র‌্যাব-৬ যশোর ক্যাম্পের এএসপি মোজাম্মেল হক এবং মণিরামপুর থানার ওসি মোশাররফ হোসেন।

শেয়ার