অনলাইন প্রচারণায় উস্কানি দিচ্ছে শিবির

sibir
বাংলানিউজ ॥
২০০৬ সালের ২৮ অক্টোবরের রাজপথের ‘প্রতিশোধ’ নিতে এবার অনলাইনে উস্কানি দিচ্ছে শিবির। জামায়াত-শিবিরের নিজস্ব ফেসবুক ও অনলাইন পেজগুলোতে দেওয়া হচ্ছে নানা হিংসাত্মক ও উস্কানিমূলক স্ট্যাটাস, প্রতিবাদ, কমেন্টস। বিভিন্ন ওয়েবসাইট ও নেতাদের ফেসবুক ওয়ালেও ছবি-স্ট্যাটাস আপলোড করা হচ্ছে, যেগুলোতে থাকছে ভয়ঙ্কর উস্কানি, হুমকি-ধামকি।
তবে বরাবরের মতো এবারও এ কাজে প্রতারণার আশ্রয় নিচ্ছে প্রতিশোধ নিতে মরিয়া যুদ্ধাপরাধীদের দলের ঘৃণিত ছাত্র সংগঠনটি। বিভিন্ন ছবি আপলোডের ক্ষেত্রে এডিটিং ও প্রতারণার আশ্রয় নেওয়ার অভিযোগ উঠছে বেশ জোরেশোরে।
শিবির নিয়ন্ত্রিত ফেসবুক পেজ বাঁশের কেল্লার ওয়ালে ২৬ অক্টোবর শনিবার থেকে ‘রক্তাক্ত ২৮ অক্টোবর ইতিহাসের কালো অধ্যায়’ লেখা ও রাস্তায় পড়ে থাকা সেদিনের লাশের ছবি দেওয়া হয়েছে। গত কয়েক দিন ধরে এই পেজটি এ দিবসটিকে নেতাকর্মীদের মাঝে স্মরণ করিয়ে দিতে নানা উস্কানিমূলক স্ট্যাটাস দিয়ে যাচ্ছে।
সারাদেশে ২৮ অক্টোবরের ‘নৃশংসতা’র কথা তুলে ধরে ৫ লাখ পোস্টার ছড়ানো হয়েছে শিবিরের পক্ষ থেকে। ছোট ছোট গ্রুপে বিভক্ত হয়ে অনলাইনেও এসব পোস্টার আপলোড করে ফেসবুকসহ সোশ্যাল সাইটে ক্যাম্পেইন করছেন দলটির আইটি সেক্টরের নেতাকর্মীরা।
জামায়াতের নিজস্ব পত্রিকাগুলোর অনলাইন ও প্রিন্ট সংস্করণে দিবসটি উপলক্ষে বিশেষ ক্রোড়পত্র ছাপা হয়েছে, যেখানে শিবির সেক্রেটারির একটি লেখা আছে।
অধিকাংশ শিবির নেতাকর্মীর ফেসবুক পেজের প্রোফাইল পিকচার হিসেবেও ২৮ অক্টোবরের পোস্টার দেওয়া হয়েছে।
নিহত ও আহতদের ছবি এবং ভিডিও বিভিন্ন সামাজিক পেজে ছড়িয়ে দেওয়ার এ ক্যাম্পেইনে সবচেয়ে বেশি ব্যবহার করা হচ্ছে বাঁশের কেল্লাকে।
জামায়াত-শিবিরের অনলাইন মুখপত্র হিসেবে কুখ্যাত এই পেজটি বিভিন্ন সময় নানা উস্কানি দিয়ে সহিংসতা সৃষ্টি করেছে এমন অভিযোগ রয়েছে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর পক্ষ থেকে। বিশেষ করে গত ৫ ফেব্রুয়ারি থেকে চলা শাহবাগের গণজাগরণ মঞ্চের বিরুদ্ধে নানা অপতৎপরতা এবং এ আন্দোলনের সঙ্গে সম্পৃক্তদের ‘নাস্তিক’ দাবি করে হেফাজতে ইসলামকে মাঠে নামানোর পেছনে এই পেজটি জড়িত বলে অভিযোগ রয়েছে। এসব অভিযোগে তিনবার এটিকে বন্ধ করা হলেও চতুর্থ সংস্করণের মাধ্যমে চলছে পেজটি। বর্তমানে এটিতে ৪ লাখ ৮২ হাজার লাইক দেওয়া আছে। আরো কয়েক লাখ ফেস ভিউয়ার সেখানে প্রতিদিন প্রবেশ করে।

শেয়ার