তৃতীয় দিন শক্ত অবস্থানে কিউইরা

Ban CR
বাংলানিউজ ॥
সাকিব আল হাসানের দারুণ বোলিং পারফরমেন্স সত্ত্বেও প্রথম ইনিংসে নিরাপদ অবস্থানে নিউজিল্যান্ড। বিজে ওয়াটলিং ও ইশ সোধির অপরাজিত ফিফটিতে দুই উইকেট হাতে রেখে ১৩৭ রানের লিড নিয়ে তৃতীয় দিন শেষ করেছে সফরকারীরা। প্রথম ইনিংসে কিউইদের পে একটি শতক ও চারটি ফিফটি এসেছে।
ওয়াটলিং ৫৯ রানে ও সোধি ৫৫ রানে অপরাজিত থেকে দিন শেষ করেছেন। দশে নেমে ৫৯ বলে অভিষেক ফিফটিতে ব্যাটসম্যান হিসেবে নিজেকে চেনালেন স্পিনার সোধি। এর আগে পঞ্চম টেস্ট ফিফটি পান ওয়াটলিং। ৮৪ রানের অবিচ্ছিন্ন জুটি গড়েছেন তারা।

বুধবার সকালে ব্যক্তিগত ৩৭ রানে মাঠে নেমেছিলেন টেলর। ৭৯ বলে পাঁচ বাউন্ডারিতে সেটাকে ২১তম টেস্ট ফিফটিতে পরিণত করেন তিনি। ৫৩ রান করে সাকিবের হাতে উইকেট তুলে দেন ডানহাতি এই ব্যাটসম্যান।

এরপর কেন উইলিয়ামসনকে নিয়ে ঘুরে দাঁড়ান কোরি এন্ডারসন। ৭২ বলে চারটি চার ও এক ছয়ে পাওয়া অভিষেক ফিফটিকে মধ্যাহ্ন বিরতি শেষে প্রথম টেস্ট শতকে পরিণত করেন তিনি। ডানহাতি এই ব্যাটসম্যান তিন অঙ্কের ঘরে পৌঁছাতে খেলেছেন ১৩৯ বল। ১১ চার ও দুই ছয়ের মার ছিল।

মধ্যাহ্ন বিরতির আগেই এন্ডারসনের পর দশম ফিফটির দেখা পান উইলিয়ামসন। চট্টগ্রামে প্রথম ইনিংসে শতক হাঁকানো এই কিউই ব্যাটসম্যান টানা দ্বিতীয় ইনিংসে ফিফটি হাঁকালেন ১০৫ বল খেলে। অবশেষে ১৪০ রানের জুটি গড়ে এন্ডারসনের সঙ্গ ছাড়া হন ডানহাতি এই ব্যাটসম্যান। ১৫২ বলে ছয়টি চারে ৬২ রানে রাজ্জাকের শিকার হন উইলিয়ামসন।

তবুও গলার কাঁটা হয়ে ছিলেন এন্ডারসন। দারুণ খেলছিলেন তিনি। অবশেষে তার মূল্যবান উইকেটটি দখলে নেন আল-আমিন। ডানহাতি এই পেসারের অভিষেক টেস্টে প্রথম উইকেটটি তুলে নিতে সময় লেগেছে ১২ ওভার তিন বল। ১৭৩ বল খেলে ১৩ চার ও দুই ছয়ে ১১৬ রানে এক্সট্রা ড্রাইভে দাঁড়িয়ে থাকা সোহাগ গাজীর তালুবন্দি হন এন্ডারসন।

চা বিরতির আগে ডগ ব্রেসওয়েলকে (১৭) সাজঘরে ফিরিয়ে ক্যারিয়ারে ১০ম বারের মতো পাঁচ উইকেট নেওয়ার কীর্তি গড়েন সাকিব। আর অষ্টম ব্যাটসম্যান হিসেবে নেইল ওয়াগনার মাঠ ছাড়েন নাসির হোসেনের বলে।

প্রথম ইনিংসে এখন পর্যন্ত সাকিব ৪০ ওভারে ৯৭ রানে পাঁচ উইকেট দখল করেছেন।

মঙ্গলবার ম্যাচের দ্বিতীয় দিন প্রথম সেশনেই বাংলাদেশ ২৮২ রানে গুটিয়ে যায়। হাতে থাকা পাঁচ উইকেট এদিন নেইল ওয়াগনার ও সোধির কাছে বিলিয়ে দেয় স্বাগতিকরা। দলের পে ৯৫ রানের সেরা ইনিংস খেলেন তামিম ইকবাল। এছাড়া মমিনুল হকের ৪৭ রান ও মার্শাল আইয়ুবের ৪১ রান গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখে।

জবাবে ব্যাট করতে নেমে ভালো শুরুর ইঙ্গিত দিয়েছিল সফরকারীরা। তবে সাকিব বল হাতে তিনটি উইকেট নিয়ে প্রতিরোধ গড়ে তুলেছিলেন। ১০৭ রানে তিন উইকেট হারায় তারা। চা বিরতির সময় বৃষ্টির কারণে নির্ধারিত সময়ের আগেই দ্বিতীয় দিনের খেলা শেষ হয়।

শেয়ার