‘পাকিস্তানে একবছরে ড্রোন হামলায় নিহত ১৯’

drone
সমাজের কথা ডেস্ক॥ পাকিস্তানে গত বছর যুক্তরাষ্ট্রের চালকবিহীন বিমান (ড্রোন) হামলায় এক বৃদ্ধাসহ ১৯ জন বেসামরিক নাগরিক নিহত হয়েছেন বলে জানিয়েছে আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংস্থা অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল।
মঙ্গলবার অ্যামনেস্টি প্রকাশতি এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়।

ড্রোন হামলা নিয়ে পাকিস্তানের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের তীব্র টানাপড়েন চলছে। যুক্তরাষ্ট্র সফররত পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফের আলোচনার অন্যমত মূল ইস্যু এই বিতর্কিত ড্রোন হামলা।

এমনই এক সময়ে অ্যামনেস্টি প্রকাশিত প্রতিবেদন পাকিস্তান-যুক্তরাষ্ট্র উত্তেজনায় নতুন মাত্রা যোগ করবে বলে ধারণা বিশ্লেষকদের।

অ্যামনেস্টি জানিয়েছে, পাকিস্তানের উত্তর ওয়াজিরিস্তানে দুটি ড্রোন হামলার বিষয়ে বিস্তারিত অনুসন্ধান চালিয়েছে তারা। তাদের একটি তদন্তকারী দলের সদস্যরা আলাদা আলাদাভাবে ওই এলাকার ৬০ জনের সাাৎকার গ্রহণ করেছেন।

ওই সাাৎকারের ভিত্তিতে প্রতিবেদনটি তৈরী করা হয়েছে বলে জানিয়েছে অ্যামনেস্টি।

প্রতিবেদনের লেখক অ্যামনেস্টির গবেষক মুস্তফা কাদরি বলেছেন, “আমরা সত্যিই খুব মর্মাহত, বিশেষ করে বৃদ্ধা ওই দাদীর ঘটনায়। প্রথমে আমরা মনে করেছিলাম, এটি সত্যি হতে পারে, এর বাইরে আরো কোনো ঘটনা থাকতে পারে।”

“যুক্তরাষ্ট্রের জন্য কোনো হুমকি নয়, যুক্তরাষ্ট্রের বিরুদ্ধে যুদ্ধরত নয়- এমন লোকজনকেও হত্যা করা হয়েছে। এইসব হত্যার যৌক্তিকতা পরিষ্কার করা উচিত যুক্তরাষ্ট্রের।”

পাকিস্তান সরকার প্রকাশ্যে যুক্তরাষ্ট্রের ড্রোন হামলার বিরোধিতা করছে। যুক্তরাষ্ট্রের হামলায় ইসলামি জঙ্গি ছাড়া অনেক বেসামরিক নাগরিক মারা যাচ্ছে বলে অভিযোগ করেছে ইসলামাবাদ।

বিশ্বের মধ্যে পাকিস্তানের উত্তর ওয়াজিরিস্তানেই সবচেয়ে বেশি ড্রোন হামলা চালায় যুক্তরাষ্ট্র। এতে অনেক জিহাদি যোদ্ধা নিহতও হয়েছেন। কিন্তু পাকিস্তান বা যুক্তরাষ্ট্র সরকার, কোনো পই নিহতদের বিষয়ে বিস্তারিত কোনো তথ্য প্রকাশ করে না।

শেয়ার