নির্বাচনে সব দলকে চান প্রধানমন্ত্রী

PMD
সমাজের কথা ডেস্ক॥ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, সব দলকে নিয়ে তিনি নির্বাচনে যেতে চাইলেও তাতে বিরোধী দলই ইতিবাচক সাড়া দিচ্ছে না।
নির্বাচনকালীন সরকার নিয়ে বিরোধী দলের সঙ্গে মতদ্বন্দ্বের মধ্যে মঙ্গলবার দিনাজপুরে এক জনসভায় তিনি একথা বলেন।
নির্বাচনকালীন সর্বদলীয় সরকার গঠনে প্রধানমন্ত্রীর প্রস্তাব গ্রহণ না করে খালেদা জিয়া সোমবার পাল্টা নির্দলীয় সরকার গঠনের প্রস্তাব দেন।
ওই প্রস্তাবের পরদিন দিনাজপুর গোরা শহীদ মাঠে আওয়ামী লীগ আয়োজিত জনসভায় শেখ হাসিনা বলেন, “আমরা সব দলকে নিয়েই নির্বাচন করতে চাই। আর এ জন্য সকল দলের প্রতিনিধিদের নিয়ে সর্বদলীয় সরকারের প্রস্তাব দিয়েছিলাম।”
বিরোধীদলীয় নেতার প্রস্তাবের সমালোচনা করে আওয়ামী লীগ সভানেত্রী বলেন, “আমাদের প্রস্তাব উনার (খালেদা জিয়ার) পছন্দ হল না। তিনি নির্বাচিত প্রতিনিধি চান না। আমরা দেশকে সামনে নিতে চাই, আর তিনি পেছনে নিতে চান।”
বিএনপি চেয়ারপারসন ১৯৯৬ ও ২০০১ এর তত্ত্বাবধায়ক সরকারের ১০ উপদেষ্টাকে নিয়ে নির্দলীয় সরকারের প্রস্তাব দিয়েছেন। এর পাঁচজন বিএনপি এবং পাঁচজন আওয়ামী লীগ মনোনীত করবে। সরকারের প্রধান মনোনীত হবেন দুই দলের ঐকমত্যের ভিত্তিতে।
অনির্বাচিতদের ক্ষমতায় বসাতে নারাজ শেখ হাসিনা জনসভায়ও বলেন, সংবিধানের মধ্যে থেকেই আগামী সংসদ নির্বাচন হবে।
জনসভায় বক্তব্যে গত পৌনে ৫ বছরে সরকারের বিভিন্ন উন্নয়ন কার্যক্রম তুলে ধরে আগামী নির্বাচনেও নৌকা প্রতীকে ভোট চান তিনি।
বিএনপি ক্ষমতায় গেলে দেশে আবার জঙ্গিবাদ ফিরবে দাবি করে ভোট দেয়ার সময় তা মনে রাখতে দেশবাসীর প্রতি আহ্বান জানান আওয়ামী লীগ সভানেত্রী।
দিনাজপুরে জনসভাস্থলে বসেই বেশ কয়েকটি প্রকল্প উদ্বোধন এবং কয়েকটির ভিত্তিস্থাপন করেন প্রধানমন্ত্রী।
আওয়ামী লীগ পুনরায় ক্ষমতায় গেলে প্রত্যেকটি জেলায় একটি করে বিশ্ববিদ্যালয় করার ঘোষণা দেন তিনি।

শেয়ার