মহাজোটেই থাকছেন এরশাদ

Ershad
সমাজের কথা ডেস্ক॥ নির্বাচনকালীন সর্বদলীয় সরকার গঠনে প্রধানমন্ত্রীর প্রস্তাবের পর গণভবনে প্রায় সোয়া এক ঘণ্টা বৈঠক করেছেন জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যান এইচ এম এরশাদ।
রোববার সন্ধ্যা ৭টা ৪০ মিনিটে ১৫ সদস্যের প্রতিনিধি দল নিয়ে এরশাদ আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে বৈঠকে বসেন। বৈঠক চলে রাত ৮টা ৫৮ মিনিট পর্যন্ত।
আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর একজন সদস্য জানিয়েছেন, আওয়ামী লীগ সভানেত্রী ধারাবাহিকভাবে শরিক এবং অন্যান্য দলগুলোর সঙ্গে মতবিনিময় করবে। এরই অংশ হিসাবে জাতীয় পার্টির সঙ্গে তিনি বৈঠক করলেন।
বৈঠক প্রসঙ্গে তিনি বলেন, “এইচ এম এরশাদের সঙ্গে আলোচনা ফলপ্রসূ হয়েছে। তিনি আশ্বস্ত করেছেন- তার দল মহাজোটেই থাকবে।”
এর আগে সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে গণভবনে পৌঁছালে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম, জাহাঙ্গীর কবির নানক, হাছান মাহমুদ ও ফারুক খান তাকে অভ্যর্থনা জানান।
এ সময় এরশাদের সঙ্গে দলের প্রেসিডিয়াম সদস্য কাজী জাফর আহমেদ, জিয়াউদ্দিন বাবলু, জি এম কাদের, কাজী ফিরোজ রশীদসহ প্রতিনিধি দলের সদস্যরা ছিলেন।
জাতির উদ্দেশে দেয়া ভাষণে শুক্রবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নির্বাচনকালীন সর্বদলীয় সরকার গঠনের প্রস্তাব রেখে তাতে অংশ নিতে আন্দোলনরত বিএনপির প্রতি আহ্বান জানান।
পরদিন প্রতিক্রিয়ায় জাতীয় পার্টি জানায়, সর্বদলীয় সরকার গঠনের বিষয়ে প্রধানমন্ত্রীর প্রস্তাব ‘স্পষ্ট’ হয়নি।
বর্তমানে মহাজোটে থাকলেও এরশাদ বেশ কিছুদিন ধরে জোট ছাড়ার কথা বলে আসছেন। ওই ঘোষণা ‘যথাসময়ে’ দেয়া হবে বলে জানিয়ে আসছেন তিনি।
নির্বাচন নিয়ে দুই প্রধান দলের পাল্টাপাল্টি অবস্থান নিয়েও সমালোচনামুখর সাবেক এই রাষ্ট্রপতি।
শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে বৈঠকে সাধারণ সম্পাদক আশরাফ ছাড়াও রয়েছেন সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী, আমির হোসেন আমু, তোফায়েল আহমেদ, শেখ ফজলুল করিম সেলিম, সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত, মোহাম্মদ নাসিম, কাজী জাফরউল্লাহ, মতিয়া চৌধুরী, ওবায়দুল কাদের, হোসেন তৌফিক ইমাম, আলাউদ্দিন আহমেদ, জাহাঙ্গীর কবির নানক, ফারুক খান, হাছান মাহমুদ, মৃণাল কান্তি দাস, আবদুস সোবহান গোলাপ এবং প্রধানমন্ত্রীর নিরাপত্তা বিষয়ক উপদেষ্টা তারেক আহমেদ সিদ্দিক।

শেয়ার