পাইকগাছায় চিংড়ি পোনা ব্যবসায় রিপনের সফলতা॥ বছরে ৫০ কোটি পোনা সরবরাহ

পাইকগাছা (খুলনা) প্রতিনিধি॥ খুলনার পাইকগাছায় চিংড়ি পোনা ব্যবসায় সফল হয়েছেন গোলাম কিবরিয়া রিপন। অকান্ত পরিশ্রম করে টানা কয়েকবছর সাফল্যের ধারাবাহিকতা ধরে রেখেছেন তিনি। সফল ব্যবসায়ী হিসাবে চলতি বছর তিনি উপজেলার শ্রেষ্ঠ চিংড়ি পোনা ব্যবসায়ীর পুরস্কারও অর্জন করেছেন। সে খুলনার রায়ের মহল এলাকার মৃত নজিরউদ্দিন আহম্মদ এর পুত্র। ১৯৯৬ সালে বিএল কলেজ থেকে মাষ্টার্স পাশ করে লেখাপড়ার ইতি টেনে চাকরি নামে সোনার হরিনের জন্য অপো না করে শুরু করে ব্যবসায়ী জীবন। কিছুদিন ঠিকাদারী ব্যবসা করার পর ১৯৯৯ সালে জেলার পাইকগাছা উপজেলা সদরের সম্ভ্রান্ত পরিবারের সাথে গড়ে তোলেন আত্মীয়তার সম্পর্ক। বিশিষ্ট সমাজসেবক আবু তাহের গাজীর শিতিা কন্যা আফরোজা পারভীন শিল্পীকে বিয়ে করার মাধ্যমে বৈবাহিক সূত্রে চিংড়ি অধ্যুষিত এ এলাকায় অপর সম্ভাবনা মনে করে ২০০১ সালের দিকে ৫ লাখ টাকা পুঁজি বিনিয়োগ করার মাধ্যমে শুরু করেন বাগদা চিংড়ির পোনা ব্যবসা। পরিশ্রম, দতা ও সততার কারনে দু’তিন বছরের মধ্যে ব্যবসায় তিনি সফলতা অর্জন করেন। ধীরে ধীরে তার এবং তার প্রতিষ্ঠান রয়্যাল ফিস ট্রেডিং এর সুনাম ও পরিচিতি গোটা এলাকায় ছড়িয়ে পড়ে। ২০০৯ সালের দিকে ব্যবসায়ীদের স্বার্থ সংরন ও কল্যাণের ল্েয সাধারণ ব্যবসায়ীদের নিয়ে খুলনা জেলা হ্যাচারী চিংড়ি পোনা ব্যবসায়ী সমিতি নামে একটি সংগঠন প্রতিষ্ঠা করেন। বর্তমানে তিনি সংগঠনের সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্বে রয়েছেন। হাটি হাটি পা করে আজ তিনি সাফল্যের শীর্ষে অবস্থান করছেন। ব্যবসার শুরুর দিকে যেখানে বছরে ২০ লাখ পোনা বিক্রি হত সেখানে এখন তার বছরে ৫০ কোটি পোনা বিক্রি হয়। মর্ডান, সৌদিয়া, প্রাইম, বেঙ্গল-বে, নিরিবিলি, সোনার গাঁ নামিরা, মিনা, মুন-স্টার, জমজমসহ স্থানীয় অসংখ্য হ্যাচারীর সরাসরি এজেন্ট তিনি। স্থানীয় চাহিদা মিটিয়ে এসব হ্যচারীর পোনা তিনি পার্শ্ববর্তী এলাকায়ও সরবরাহ করে থাকেন। বর্তমানে তার পূর্ব ওয়াপদা রোডস্থ রয়্যাল প্লাজায় নিজস্ব দ্বিতল ভবনে ব্যবসায়ীক কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছেন। ৯জন জনবল ব্যবসায়ীক কাজে সার্বনিক নিয়োজিত রয়েছে। পোনা ব্যবসার পাশাপাশি ৪৫০ বিঘার ৩টি চিংড়ি ঘেরও রয়েছে তাঁর। সফল পোনা ব্যবসায়ী হিসাবে চলতি বছর উপজেলা মৎস্য অধিদপ্তর থেকে তাঁকে সেরা পোনা ব্যবসায়ীর পুুরস্কার প্রদান করা হয় বলে উপজেলা সিনিয়র মৎস্য কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) এসএম শহীদুল্লাহ জানান। ব্যবসায়ী রিপনকে এলাকার অনেকেই পাখি প্রেমিক হিসাবেও চেনেজানে। বর্তমানে স্ত্রী ও একমাত্র শিশুকন্যা আরিয়ানা তামান্নাকে নিয়ে সুখেই রয়েছেন সফল এ ব্যবসায়ী। নিজের প্রচেষ্টা, অকান্ত পরিশ্রম সততা মানুষের দোয়াই ব্যবসায়ী জীবনে এ অর্জন সম্ভব হয়েছে বলে ব্যবসায়ী রিপন জানান।

শেয়ার