নেংগুড়াহাটে প্রতিমা বিসর্জনকে কেন্দ্র করে দু’গ্রামের ঋষি সম্প্রদায়ের সংঘর্ষে আহত

নেংগুড়াহাট (মণিরামপুর) প্রতিনিধি॥ মণিরামপুরের পল্লীতে প্রতিমা বিসর্জন দেওয়াকে কেন্দ্র করে শনিবার সকালে দু’গ্রামের ঋষি সম্প্রদায়ের মধ্যে সংঘর্ষে উভয় পরে ১০জন আহত হয়েছে। আহতদের হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।
জানাযায়, ১৪ অক্টোবর মণিরামপুর উপজেলার লণপুর ঋষিপাড়া দূর্গা পুজার প্রতিমা বিসর্জন দিতে গেলে রামনাথপুর ঋৃষিপাড়ার কয়েকজন উৎশৃঙ্খল যুবক তাদের প্রতিমার একাংশ আগেই পানিতে ফেলে দেয়। এ নিয়ে দু গ্রামের ঋষিদের মধ্যে বাগবিতণ্ডের এক পর্যায় মিমাংসা হয়। কিন্তু সেই ঘটনার জের ধরে শনিবার সকালে রামনাথপুর ঋষি সম্প্রদায়ের লোকেরা লণপুর ঋষিপাড়ার উপর দা, লাঠি নিয়ে অতর্কিত হামলা চালায়। হামলায় লণপুর ঋষিপাড়ার বিদাসের ছেলে নিমাই (৫০), রণজিত (৬০) নিমাইয়ের মেয়ে আরতি (২২) রণজিতের ছেলে অসিম (৩০) স্ত্রী মান্দারী (৪২) তারাপদর ছেলে বিনয় (৩০) আহত হয়। এ সময় তারা ২টি মোবাইল সেট ও নগদ ১৫শ’ টাকা নিয়ে যায়। এ দিকে সংঘর্ষে রামনাথপুর ঋষিপাড়ায় বিলাতের ছেলে অজিত (২০) ও মেয়ে ময়না (২৫) এবং স্ত্রী কুসুম (৫০), গ্রামের জামাই উপজেলার জয়পুর গ্রামের হরিপদর ছেলে বাবু (৪০) আহত হয়। আহতদের মণিরামপুর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। এছাড়া উভয় গ্রামের আরও ১০/১২জন কমবেশি আহত হয়েছে তাদেরকে স্থানীয়ভাবে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। এ দিকে দু’গ্রামের ঋষি সম্প্রদায়ের সংঘর্ষের সংবাদ পেয়ে রাজগঞ্জ পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ মোল্লা জিয়াদুজ্জামানসহ ফোর্স নিয়ে ঘটনাস্থলে যেয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রন করেন। তবে এঘটনা নিয়ে দু’গ্রামের ঋষিদের মধ্যে টানটান উত্তেজনা বিরাজ করছে যে কোন মূহুর্তে রক্তয়ী সংঘর্ষের সম্ভবনা রয়েছে।

শেয়ার