যশোরে চাঁদাবাজির প্রতিবাদ করায় যুবককে ছুরিকাঘাত, থানা ঘেরাও আটক ৬, দ্রুত বিচার আইনে মামলা

গতকাল বারান্দীপাড়ায় চাঁদাবাজ ও চিহ্নিত ছিনতাইকারী রায়হান ইসলাম, ইমরান হোসেন, আলাউদ্দীন ইসলাম ও রিপনকে গণধোলাই দিয়ে পুলিশের কাছে সোপর্দ করে	-সমাজের কথা
গতকাল বারান্দীপাড়ায় চাঁদাবাজ ও চিহ্নিত ছিনতাইকারী রায়হান ইসলাম, ইমরান হোসেন, আলাউদ্দীন ইসলাম ও রিপনকে গণধোলাই দিয়ে পুলিশের কাছে সোপর্দ করে -সমাজের কথা

নিজস্ব প্রতিবেদক॥ যশোরে চাঁদাবাজির প্রতিবাদ করায় শুক্রবার বিকালে সুমন (২২) নামে এক যুবককে ছুরিকাঘাত করেছে সন্ত্রাসীরা। এঘটনায় দু’টি ছোরাসহ শীর্ষ সন্ত্রাসী ধামা রিপনকে এলাকাবাসী আটক করে পুলিশে দিয়েছে। পরে আটক চাঁদাবাজদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি ও অন্যদের আটকের দাবিতে শহরের পূর্ববারান্দিপাড়ার মানুষ কোতোয়ালি থানা ঘেরাও করে। চাপের মুখে পুলিশ সন্ত্রাসী ধামা রিপনের ৫ সহযোগীকে আটক করে। আটককৃতরা হলো, পূর্ববারান্দিপাড়ার আবু তালেবের ছেলে ধামা রিপন, আবুল কালামের ছেলে ইসমাইল হোসেন, রবিন কুমার দেবনাথের ছেলে অনু, মোতালেবের ছেলে ইমরান, শহিদের ছেলে আলাউদ্দিন, বারান্দিপাড়ার বউবাজার এলাকার লালুর ছেলে রায়হান। তাদের নামে দ্রুত বিচার আইনে মামলা হয়েছে।
এলাকাবাসী জানান, পূর্ববারান্দিপাড়ার আবু তালেবের ছেলে একাধিক মামলার আসামি ধামা রিপন ও তার সহযোগীরা এলাকায় দীর্ঘদিন চাঁদাবাজি করে আসছে। তাদের অপকর্মের প্রতিবাদ করলে জনগণের উপর নির্যাতন চালানো হত। ওই এলাকার তোফাজ্জেল হোসেনের ছেলে সুমন সম্প্রতি একটি চাঁদাবাজির ঘটনায় প্রতিবাদ করলে সন্ত্রাসীরা তার উপর ক্ষিপ্ত হয়। এর জের ধরে শুক্রবার বিকালে বারান্দিপাড়া লিচুতলা এলাকায় সুমনে ছুরি মারে সন্ত্রাসীরা। এ সময় ছোরাসহ শীর্ষ সন্ত্রাসী ধামা রিপনকে আটক করে এলাকাবাসী পুলিশে দেয়। পরে অন্য সন্ত্রাসীদের আটক ও আটককৃতদের শাস্তির দাবিতে ুব্ধ এলাকাবাসী থানা ঘেরাও করে।
কোতোয়ালি থানার ডিউটি অফিসার এএসআই শারমিন জানান, এঘটনায় ৬ জন ছিনতাইকারীকে আটক করা হয়েছে। আটককৃতদের নামে দ্রুত বিচার আইনে মামলা হয়েছে।

শেয়ার