প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় ও গণভবনে প্রথম আলো নিষিদ্ধ!

pro logo
বাংলানিউজ
প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে, বাসভবনে নিষিদ্ধ হয়েছে দৈনিক প্রথম আলো। ঈদ-উল-আজহার ছুটির পর শনিবার প্রথম প্রকাশিত হয় পত্রিকাটির প্রিন্ট ভার্সন। এইদিন একটি কপিও ঢোকে নি প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে ও বাসভবনে। সচিবালয় ও মন্ত্রিপাড়ায়ও শিগগিরই এই সিদ্ধান্তের বাস্তবায়ন হতে যাচ্ছে।
সংশ্লিষ্ট একটি দায়িত্বশীল সূত্র এ তথ্যের সত্যতা বাংলানিউজকে নিশ্চিত করেছে।
সূত্রটি জানায়, মৌখিক একটি নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে যাতে প্রথম আলো সংবাদপত্রটি আর গণভবন কমপ্লেক্স ও প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে না ঢোকে। সে অনুযায়ী শনিবার প্রথম আলোর কোনো কপি সেখানে যায় নি।
সম্প্রতি এই সংবাদপত্রটি সরকারের কার্যক্রম সম্পর্কে দৃশ্যত অতিমাত্রায় বিরূপ অবস্থান গ্রহণ করেছে। এ কারণেই এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলে সূত্রটি দাবি করে।
প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের একটি বিশ্লেষণে পত্রিকাটিকে সরকারবিরোধী হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে উল্লেখ করে সূত্রটি আরও জানায়, এটিতে মহাজোট সরকারের সমর্থক ব্যাপক জনগোষ্ঠীর আশা-আকাঙ্ক্ষার প্রতিফলন ঘটে না।
সংবাদপত্রটির সংবাদ পরিবেশন ও সম্পাদকীয় নীতিতেও ভারসাম্যহীনতা রয়েছে বলে মনে করছে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়।
এ বিষয়ে প্রধানমন্ত্রীর প্রেস উইংয়ের একজন দায়িত্বশীল কর্মকর্তার সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, সরকারের উন্নয়ন কার্যক্রমের খবর সঠিকভাবে সংবাদপত্রটিতে আসে না। এই পত্রিকায় সরকারের কার্যক্রম সম্বন্ধে যা কিছু প্রকাশিত হয় তা সবই পক্ষপাতদুষ্ট, অনিরপেক্ষ ও একপেশে। এটা কোনোভাবেই কাম্য নয়।
পত্রিকাটির সম্পাদকীয় নীতি এক-এগারো পরবর্তী সরকারের বিরাজনীতিকরণকে ফলাও করে সমর্থন জানিয়েছিলো বলেও উল্লেখ করেন ওই কর্মকর্তা।

শেয়ার