স্বপ্নে পাওয়া সোনার খোঁজে ভারত সরকার

Tamplet
সমাজের কথা ডেস্ক॥ এক সাধুর দেখা স্বপ্নের বয়ান শুনে এলাহি কারবার শুরু হয়ে গেছে ভারতের উত্তর প্রদেশে।
এক কেন্দ্রীয় মন্ত্রীর আগ্রহে স্বপ্নের নির্দেশনা অনুযায়ী ১০০০ টন সোনার খোঁজে রাজা রাও রাম বক্স সিংহের দুর্গে খোঁড়াখুঁড়ি শুরু করেছে আর্কিওলজিক্যাল সার্ভে অফ ইন্ডিয়া।
ওই দুর্গের নিচে সোনা পাওয়া গেলে তা যাতে বেহাত না হয়, সেজন্য নজরদারি চেয়ে ভারতের সুপ্রিম কোর্টে একটি রিট আবেদনও হয়েছে।
১৮৫৭ সালের সিপাহী বিদ্রোহের সময় ব্রিটিশদের হাতে শহীদ হন রাজা রাও রাম বক্স সিংহ। ভারতীয় গণমাধ্যমের খবর, সম্প্রতি শোভন সরকার নামে এক সাধুর স্বপ্নে হাজির হয়ে রাও রাম বক্স ওই গুপ্তধনের খোঁজ দেন।
সেই সাধুর অনুসারী স্বামী ওমজির দাবি, উত্তরপ্রদেশের উন্নাও জেলার দৌন্ডিয়া খেরা গ্রামে ওই দুর্গের ধ্বংসাবশেষের নিচে পোঁতা রয়েছে প্রায় ১০০০ টন সোনা। ব্রিটিশদের হাত থেকে বাঁচাতে রাজা রাও রাম ওই সোনা দুর্গের নিচে লুকিয়ে গেছেন। আর স্বপ্নে তিনি গুপ্তধন দেখভালের দায়িত্ব দিয়েছেন সাধু শোভন সরকারকে।
সাধুর এই স্বপ্নের বিষয়টি শুনে ভারতের কৃষি এবং খাদ্য প্রক্রিয়াকরণবিষয়ক প্রতিমন্ত্রী চরণদাস মহান্ত আগ্রহী হয়ে ওঠেন। এরপর সেই ‘সোনা উদ্ধারের’ দায়িত্ব চাপে আর্কিওলজিক্যাল সার্ভে অফ ইন্ডিয়ার ঘাড়ে।
সে অনুযায়ী আর্কিওলজিক্যাল সার্ভে অফ ইন্ডিয়া ও জিওলজিক্যাল সার্ভে অফ ইন্ডিয়া ওই এলাকায় সমীক্ষাও চালায়। এরপর শুক্রবার শুরু হয় খনন কাজ।
এনডিটিভির খবরে বলা হচ্ছে, আর্কিওলজিক্যাল সার্ভের একটি দল দুর্গের ভেতরে ১০০ বর্গফুট মাপের দুটো গর্ত খুঁড়বে। সেখানেই চলবে সোনার খোঁজ।
এদিকে স্বপ্নে পাওয়া নির্দেশ শুনে মন্ত্রীর আগ্রহী হয়ে ওঠা এবং সরকারি একটি সংস্থাকে মাটি খুড়তে পাঠানো নিয়ে সমালোচনার মধ্যেই একটি রিট আবেদন হয়েছে ভারতের সুপ্রিম কোর্টে। রাজা রাও রাম বক্স সিংহের দুর্গের নিচে সোনা মিললে তা যাতে নয়ছয় না হয়- সেজন্য আদালতের নজরদারি ও নির্দেশনা চাওয়া হয়েছে ওই রিটে।
কয়েক মাস আগেও ছোট্ট গ্রাম দৌন্ডিয়া খেরার নামই অনেকে জানতেন না। আর এখন উত্তর প্রদেশে সব আলোচনাতেই গুপ্তধন পাওয়া না পাওয়ার সম্ভাবনার কথা আসছে ঘুরেফিরে। চেনা অচেনা অনেকেরই পা পড়ছে দৌণ্ডিয়া খেরায়। রাজা রাও রামের বংশধর দাবিদাররাও গুপ্তধনের ভাগ নিতে হাজির হচ্ছেন।
ভারতীয়দের স্বর্ণপ্রীতি এতোটাই বেশি যে শতকোটি মানুষের এই দেশে প্রতিদিন প্রায় ২.৩ টন সোনা বেচাকেনা হয়, যা একটি ছোটখাট হাতির ওজনের সমান। আর এর বেশিরভাগটাই মালিকের সিন্দুকে জমতে থাকে।

নাগরিকদের এই শখ মেটাতে গিয়ে ভারতীয় অর্থনীতিকেও যথেষ্ট চাপ সামলাতে হয়। নিজেদের যথেষ্ট সোনার খনি না থাকায় গত অর্থবছরে ভারতকে আমদানি করতে হয়েছে প্রায় ৫৪ বিলিয়ন ডলারের সোনা।
অবশ্য স্বামী শোভন সরকারের স্বপ্ন সত্যি হয়ে গেলে আগামী এক বছর ভারতের আর সোনা আমদানি না করলেও চলবে। বর্তমান বাজারে এক হাজার টন সোনার দাম প্রায় ৪০ বিলিয়ন ডলার।

শেয়ার