ফুলতলায় পশুর ব্যাপক আমদানী হলেও ক্রেতা কম॥ হতাশ ব্যবসায়ীরা

Cow
ফুলতলা (খুলনা) প্রতিনিধি॥ আসন্ন ঈদুল আযহাকে সামনে রেখে খুলনার ঐতিহ্যবাহী ফুলতলা হাটে ব্যাপক গরু-ছাগলের সমাহার হলেও ক্রেতার উপস্থিতি তুলনামুলক কম। হতাশ ব্যবসায়ীরা।
বাজার ঘুরে দেখা যায়, বিভিন্ন এলাকা থেকে আগত গরু মালিকসহ ব্যবসায়ীরা তাদের গবাদী পশু নিয়ে দুপুরের মধ্যে হাটে অবস্থান নেয়। গরু হাট নির্ধারিত স্থান ছাড়িয়ে একদিকে ফুলতলা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মাঠ, সিকিরহাট সড়কের রি-ইউনিয়ন স্কুল এবং অন্যদিকে ফুলতলা সরকারি বালিকা বিদ্যালয় পর্যন্ত বি¯তৃতি ঘটেছে। গরুর দামও গতবছরের তুলনায় অনেক কম। ক্রেতা তুলনামুলক কম হওয়ায় কেনাবেচাও কম। ফলে ব্যবসায়ীরাও হতাশ। একদিকে গরুর খাদ্যের দাম বেশী অন্যদিকে কেনা বেচা কম হওয়ায় এ বছর ব্যবসায়ীরা তির আশঙ্কা করছে। এদিকে পুলিশ প্রশাসনসহ হাট ইজারাদার মালিক প নির্বিঘেœ কেনা বেচার পরিবেশ সৃষ্টির সব রকম প্রস্তুতি গ্রহণ করেছে। স্থানীয় সোনালী ব্যাংকের শাখা জাল নোট সনাক্ত করার জন্য একটি ক্যাম্প খুলেছে। বাশুয়াড়ী থেকে আগত গরু ব্যবসায়ী মোঃ সেলিম হোসেন জানান, আমি এ বছর ৫টি গরু নিয়ে এসেছি। আশানুরুপ দাম না পেয়েও এ পর্যন্ত ৪টি গরু বিক্রি করেছি। লাভ তো হবেনা বরং তি হবে। নওয়াপাড়া থেকে আগত ব্যবসায়ী মোঃ আফজাল জানান, এ বছর ৮টি গরুর মধ্যে ২টি বিক্রি করেছি। তবে ব্যবসায়ীরা জানান, গরু আজকে বিক্রি করতে না পারলে খুলনা জোড়াগেট হাটে নিয়ে যাবে। হাট ইজারাদার জানান, ক্রেতা-বিক্রেতার সুবিধার জন্য সার্বণিক বৈদ্যুতিক ব্যবস্থাসহ সব ধরণের প্রস্তুতি গ্রহণ করা হয়েছে। এ পর্যন্ত্ হাজার খানেক গরু বিক্রি হয়েছে আরও ৩/৪ হাজার গরু বিক্রি হবে। ওসি মোঃ ইমদাদ হোসেন জানান, ব্যবসায়ীরা যাতে গরু কেনা বেচা করে নির্বিঘে বাড়ী যেতে পারে সেজন্য আমাদের সিভিল টিমসহ একটি টিম সার্বণিক রয়েছে।

শেয়ার