২২শে ফেব্রুয়ারি ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ৯ই ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
সরিষা চাষে আগ্রহ বেড়েছে শার্শার কৃষকদের

বিএম রুহুল কুদ্দুস শাকিল, সাড়াতলা (শার্শা) : সরিষার এ মৌসুমে মাঠে মাঠে সরিষার ক্ষেতে হলুদ ফুলে ভরে গেছে। পৌষের ঝিরঝির হিমেল বাতাসে সেই ফুল আপন মনে দোল খাচ্ছে। সরিষার হলুদ ফুল প্রকৃতিতে শোভা বর্ধনে যেন নব সাজে সেজেছে । ফুল ও ফুলের সুভাস যেমন মানুষকে বিমোহিত করছে, তেমনি ফুলের মৌ মৌ গন্ধে মাতোয়ারা মৌমাছিও । এক ফুল থেকে অন্য ফুলে মধু সংগ্রহে তাই এই মূহুর্তে মৌমাছি দল বেঁধে মাঠের পর মাঠ জুড়ে ছুটে বেড়াচ্ছে। এমন দৃশ্য এখন যশোরের শার্শার প্রতিটি মাঠে মাঠে লক্ষ্য করা যাচ্ছে।

উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা যায়, চলতি বছর শার্শা উপজেলায় ৭ হাজার ১৫৬ হেক্টর জমিতে বিভিন্ন জাতের সরিষার চাষ করা হয়েছে। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য সরিষার জাত হচ্ছে বারি ১৪, ১৭, ১৮ এবং বিনা ৪, ৯ ও ১০ গত বছর উপজেলায় ৬ হাজার ৩৬৬ হেক্টর জমিতে সরিষা চাষ করা হয়েছিল । চলতি বছর লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ৫৬ হেক্টর বেশি জমিতে সরিষার আবাদ করা হয়।

কৃষি বিভাগ বলছে, উপজেলার মাটি সরিষা চাষের উপযোগী। অনুকূল পরিবেশে এখানে কৃষকদের সময়োপযোগী কৃষি বিভাগ হতে উৎসাহ ও নানা পরামর্শ প্রদান এবং কৃষকদের মাঝে সময় মতো সরকারি প্রণোদনার বীজ, সার প্রদানের জন্য প্রতি বছর সরিষার আবাদ বৃদ্ধি পাচ্ছে। কথা হয় উপজেলার ডিহি ইউনিয়নের দরিদূর্গাপুর গ্রামের চাষি ইমান, শালকোনার রফিকুল ও ইয়াছিনসহ বেশ কয়েকজনের সাথে।

তারা জানান যে, কৃষি বিভাগের পরামর্শ অনুযায়ী ১৬ অক্টোবর থেকে নভেম্বরের শেষ পর্যন্ত সরিষা চাষ করা যায়, সেই অনুযায়ী কৃষকরা উদ্বুদ্ধ হয়েছেন। সরিষা চাষে সেচ ও রাসায়নিক সার কম প্রয়োজন হওয়ায় খরচও বেশ কম হয়। এছাড়াও সরিষার পাতা জমিতে পড়ে সবুজ সার তৈরি হয়, যা বোরো চাষে জৈব সারের চাহিদা মেটায়।

এ বছর বৃষ্টিপাত তুলনামূলক কম হওয়ায় বর্ষা মৌসুমে পানি জমে থাকা নিচু জমিতে সরিষার চাষ হয়েছে বেশি। এ ছাড়া আমন ধানের জমিতেও বিনা চাষে বীজ ছড়িয়েও চাষ করা হয়েছে। পরিবারের তেলের চাহিদা পূরণসহ স্বল্পমেয়াদি ও লাভজনক হওয়ায় সরিষা চাষে কৃষকদের মধ্যে আগ্রহ বেড়েছে।

এ বিষয়ে শার্শা উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা দীপক কুমার সাহা বলেন, গত বছরের তুলনায় চলতি বছর উপজেলায় ৭ হাজার ১৫৬ হেক্টর জমিতে সরিষার আবাদ হয়েছে। যা লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ৫৬ হেক্টর বেশি। সরিষার আবাদ বৃদ্ধি করতে সরকারি নির্দেশনা অনুযায়ী এ বছর উপজেলার ৫ হাজার ৫ শত কৃষকদের মধ্যে বিঘা প্রতি প্রণোদনার ১ কেজি সরিষার বীজ ও ২০ কেজি প্রণোদনার সার বিতরণ করা হয়েছে। এ বছর বৃষ্টিপাত কম হওয়ায় জমিতে দ্রুত জো এসেছে। কৃষি বিভাগের পরামর্শ ও উদ্বুদ্ধকরণ অনুযায়ী কৃষকরা বসে না থেকে সময়মত চাষ করেছেন। আশা করি গত বছরের তুলনায় এবছর কৃষকরা সরিষার কাঙ্খিত বেশি ফলন ও দাম পাবেন ।

সম্পাদক ও প্রকাশক : শাহীন চাকলাদার  |  ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আমিনুর রহমান মামুন।
১৩৬, গোহাটা রোড, লোহাপট্টি, যশোর।
ফোন : বার্তা বিভাগ : ০১৭১১-১৮২০২১, ০২৪৭৭৭৬৬৪২৭, ০১৭১২-৬১১৭০৭, বিজ্ঞাপন : ০১৭১১-১৮৬৫৪৩
Email : samajerkatha@gmail.com
পুরাতন খবর
FriSatSunMonTueWedThu
 1
2345678
9101112131415
16171819202122
23242526272829
স্বত্ব © samajerkatha :- ২০২০-২০২২
crossmenu linkedin facebook pinterest youtube rss twitter instagram facebook-blank rss-blank linkedin-blank pinterest youtube twitter instagram