২৩শে এপ্রিল ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ১০ই বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
পরামর্শ খাতে ব্যয় প্রস্তাব ৩৪২ কোটি

সমাজের কথা ডেস্ক : দেশে সড়ক, ব্রিজ বা কালভার্ট, ফুটপাত, ড্রেন নির্মাণ, সড়কবাতি স্থাপন নতুন কিছু নয়। এর পাশাপাশি বাস টার্মিনাল, মার্কেট নির্মাণ, পার্ক নির্মাণকাজ চলছে অহরহ। এ প্রচলিত কাজের জন্য প্রস্তাবিত এক প্রকল্পের আওতায় দেশ—বিদেশে প্রশিক্ষণ ও পরামর্শক খাতে ব্যয় প্রস্তাব করা হয়েছে প্রায় ৩৪২ কোটি টাকা।

এলজিইডির (স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের) এমন প্রস্তাবে প্রশ্ন তুলেছে পরিকল্পনা কমিশন। বৈশ্বিক অর্থনৈতিক সংকটের এ মুহূর্তে এমন প্রচলিত কাজে অতিরিক্ত ব্যয় বাদ দিয়ে যৌক্তিক পর্যায়ে খরচ নামিয়ে আনার সুপারিশ করেছে কমিশন।

দেশের নগর পরিষেবাসমূহের অবকাঠমোগত উন্নয়নে ৫ হাজার ৯৪১ কোটি টাকা ব্যয়ে ‘নগর ও আঞ্চলিক উন্নয়ন প্রকল্প’ প্রস্তাব পরিকল্পনা কমিশনে পাঠিয়েছে স্থানীয় সরকার বিভাগ। ওই প্রকল্পে বিদেশে প্রশিক্ষণ নিতে ৫ কোটি টাকা এবং দেশে প্রশিক্ষণ খাতে ২০ কোটি টাকা ব্যয় প্রস্তাব করা হয়েছে। পাশাপাশি প্রকল্পের পরামর্শক খাতে প্রায় ৩১৭ কোটি টাকা ব্যয়ের প্রস্তাব করেছে এলজিইডি।

সম্প্রতি স্থানীয় সরকার বিভাগের প্রস্তাবিত এ প্রকল্প নিয়ে সভা করে প্রকল্প মূল্যায়ন কমিটি (পিইসি)। সভাপতিত্ব করেন পরিকল্পনা কমিশনের ভৌত অবকাঠামো বিভাগের সদস্য (সচিব) এমদাদ উল্লাহ মিয়ান। সভায় প্রকল্পের নানান খাতের ব্যয় কমানোর সুপারিশ করা হয়।

পরিকল্পনা কমিশনের ভৌত অবকাঠামো বিভাগের যুগ্মপ্রধান (ভৌত পরিকল্পনা, পানি সরবরাহ ও গৃহায়ন উইং—২) আবু মো. মহিউদ্দিন কাদেরী বলেন, ‘এলজিইডির প্রস্তাবিত প্রকল্প নিয়ে পিইসি সভা হয়েছে। ব্যয় কমানোর জন্য আমরা দফায় দফায় বৈঠক করি।

কিছু সুপারিশও দিয়েছি, চেষ্টা করছি ব্যয় কমানোর। ব্যয় কমানোর সুযোগ থাকলে আমার বিশ্বাস ব্যয় কমাবে তারা। যতটুকু ব্যয় কমবে ততই ভালো। তবে যারা প্রকল্পের প্রস্তাব পাঠায় তাদেরও কিছু শর্ত থাকে। সেসব শর্ত অনুসরণ করেই তারা প্রকল্পের প্রস্তাব করে।’

সড়ক, ব্রিজ, ফুটপাত, পার্ক নির্মাণ এলজিইডির নিয়মিত কাজ। তাই এসব কাজের অভিজ্ঞতা অর্জনের জন্য বৈদেশিক প্রশিক্ষণের প্রয়োজন নেই। ফলে প্রকল্প থেকে বৈদেশিক প্রশিক্ষণ বাদ দিতে বলেছে সংস্থাটি।

প্রস্তাবিত এ প্রকল্পের আওতায় সড়ক, ব্রিজ বা কালভার্ট, ফুটপাত, ড্রেন নির্মাণ করা হবে। একই সঙ্গে প্রকল্পের কাজের মধ্যে রয়েছে বাস টার্মিনাল, মার্কেট নির্মাণ, সড়কবাতি স্থাপন, পার্ক নির্মাণ ইত্যাদি। অহরও করা হলেও একই কাজ শিখতে প্রকল্পটির আওতায় বিদেশে প্রশিক্ষণে ব্যয় প্রস্তাব করা হয়েছে ৫ কোটি টাকা। এছাড়া পরামর্শক খাতে চাওয়া হয়েছে প্রায় ৩১৭ কোটি টাকা, যা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে পরিকল্পনা কমিশন।

প্রকল্পটিতে বিদেশে প্রশিক্ষণ খাতে ৫ কোটি টাকা বরাদ্দ চাওয়ার বিষয়ে কমিশন বলছে, সড়ক, ব্রিজ, ফুটপাত, পার্ক নির্মাণ এলজিইডির নিয়মিত কাজ। তাই এসব কাজের অভিজ্ঞতা অর্জনের জন্য বৈদেশিক প্রশিক্ষণের প্রয়োজন নেই। ফলে প্রকল্প থেকে বৈদেশিক প্রশিক্ষণ বাদ দিতে বলেছে সংস্থাটি।

সম্পাদক ও প্রকাশক : শাহীন চাকলাদার  |  ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : আমিনুর রহমান মামুন।
১৩৬, গোহাটা রোড, লোহাপট্টি, যশোর।
ফোন : বার্তা বিভাগ : ০১৭১১-১৮২০২১, ০২৪৭৭৭৬৬৪২৭, ০১৭১২-৬১১৭০৭, বিজ্ঞাপন : ০১৭১১-১৮৬৫৪৩
Email : samajerkatha@gmail.com
পুরাতন খবর
FriSatSunMonTueWedThu
 1234
567891011
12131415161718
19202122232425
2627282930 
স্বত্ব © samajerkatha :- ২০২০-২০২২
crossmenu linkedin facebook pinterest youtube rss twitter instagram facebook-blank rss-blank linkedin-blank pinterest youtube twitter instagram