আতর টুপি জায়নামাজ কিনতে কুতুবখানায় ভিড়

সালমান হাসান
ঈদ, অনাবিল আনন্দে ভরপুর একটি দিন। খুশির এ দিনটির সূচনা হয় জামাতে নামাজ আদায়ের মধ্য দিয়ে। ফুরোতে চলল রোজার মাস। কদিন পরেই বর্ণিল ঈদ উৎসব। ইতিমধ্যে যারা কেনাকাটার পাট চুকিয়েছেন, এখন তারা ভিড় করছেন কুতুবখানায়। উদ্দেশ্য, ঈদের সকালে জামাতের সাথে নামাজ আদায়ের জন্য জায়নামাজ, টুপি, আতর আর তসবি কেনা। ফলে যশোর শহরের কুতুবখানায় ভিড় বাড়ছে।
ঈদের দিন সকালে বাহারি সব পানজাবি, ফতুয়া, কাবলি ড্রেস পড়ে নামাজ আদায়ে বের হন বেশির ভাগ মানুষ। আর এসব মানুষদের অধিকাংশই চান মাথার টুপিটি পোশাকের সাথে ম্যাচ করে পড়তে। যে কারণে ঈদের আগে আতর, টুপি, তসবি, জায়নামাজের দোকান কুতুবখানায় ভিড় বাড়তে থাকে বলে জানান শহরের মসজিদ মার্কেট গলির মদিনা কুতুবখানার স্বত্বাধিকারীদের একজন হাবিবুর রহমান। তিনি বলেন, ঈদ ঘনিয়ে আসছে। একারণে মানুষজনের চাপ বাড়ছে। তবে ঈদের আগের দুইদিনে ক্রেতাদের এই চাপ আরো বাড়বে। শহরের বিভিন্ন কুতুবখানায় গিয়ে জানা গেছে, টুপির পাশাপাশি দেশি বিদেশি বিভিন্ন ব্রান্ডের খুশবুদার আতর ও জায়নামাজ কিনছেন মানুষ। তবে বিদেশি আতর ও মখমলের জায়নামাজের প্রতি সবার ঝোঁক তুলনামূলক বেশি। বিক্রেতারা জানান, এবারের ঈদ বাজারে সৌদিআরব, দুবাই, মালয়েশিয়া, হল্যান্ড ও ভারত থেকে আমদানি করা আতর দোকানে তুলেছেন তারা। যার মধ্যে রয়েছে হোয়াইট, ফুল, লর্ড, দালাল সফট, জান্নাতুল ফেরদৌসসহ আল নাঈম ব্রান্ডের বিভিন্ন ধরনের খুশবুদার আতর। এসব আতরের দাম মানভেদে ৫০০ টাকা থেকে এক হাজার টাকা পর্যন্ত। এছাড়া জায়নামাজের দাম ৩০০ টাকা থেকে আরম্ভ করে এক হাজার ৫০০ টাকার মধ্যে। আর টুপির দাম ১০ টাকা থেকে ৫০০ টাকার মধ্যে।
সোমবার সকালে শহরের এইচএমএম রোডে টুপি, জায়নামাজ, আতর, তসবি বিক্রির প্রতিষ্ঠান আল-মদিনা স্টোরে প্রচুর ভিড় লক্ষ্য করা যায়। এসময় আলাপ হয় আলামিন সবুজ নামে এক তরুণের সাথে। আলাচারিতায় তিনি বলেন, ‘এবারের ঈদের জন্য জলপাই কালারের একটি পানজাবি কিনেছি। পানজাবির সাথে ম্যাচিং করে এমন একটি টুপির পাশাপাশি বাবার জন্য আতর কিনতে এসেছি। ঈদের আর বেশিদিন বাকি নেই। এখনই প্রচুর ভিড়। পরে ভিড় আরো বাড়বে। তাই এখনই আতর টুপি কেনার পর্ব সেরে নিচ্ছি।’ দোকানটির বিক্রয়কর্মী মোহাম্মদ জালাল বলেন, ‘ঈদ ঘনিয়ে আসায় ক্রেতাদের চাপ এখন প্রচুর। প্রতি বছরই ঈদের দু’তিন দিন আগ থেকে মানুষের চাপ বেড়ে যায়’।

SHARE