আদালতে হাজিরা দিয়েও খাতাপত্রে পলাতক ঝিকরগাছার এক ব্যক্তিকে কারাগারে প্রেরণ

নিজস্ব প্রতিবেদক॥ যশোর জেলা জজ আদালতের অফিস সহকারীর ভুলে জামিনের ৪ বছর পর আবারো জেল হাজতে যেতে হলো ঝিকরগাছার আসাদুল ইসলামকে। সে উপজেলার গঙ্গানন্দপুর ইউনিয়নের জিউলিগাছা গ্রামের আব্দুল জলিলের ছেলে।
জানা গেছে, ২০১৪ সালের ১২ মার্চ ঝিকরগাছা থানার ১৩ নং মামলায় একই বছরের ১৫ জুন জেলা জজ আদালত থেকে জামিন প্রাপ্ত হয় আসাদুল ইসলাম। জামিন প্রাপ্তির পর হতে আসাদুল প্রতিটি ধার্য দিনে হাজিরা দিয়ে আসছে। পরবর্তীতে মামলাটি এসটিসি-৭৭৬/১৫ নং মোকর্দ্দমায় রূপান্তির হয়। বিজ্ঞ জেলা জজ আদালত হতে উল্লেখিত আসামি আসাদুল ইসলাম ২০১৬ সালের ১০ জানুয়ারি পুনরায় জামিন প্রাপ্ত হয়। অতঃপর মোকর্দ্দমাটি বিচারের জন্য বিজ্ঞ অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ দ্বিতীয় আদালতে বদলি করা হয়। যা চলতি বছরের ১৬ জুন দিন ধার্য ছিল। আসামি আসাদুল ইসলাম ওই দিন আইনজীবী এড. মাহাবুবুর রহমানের মাধ্যমে যথারীতি বিজ্ঞ আদালতে হাজির হয়ে পূর্ণ জামিনের আবেদন করেন। কিন্তু বিজ্ঞ দ্বিতীয় আদালতের বিচারক বদলিজনিত কারণে উপস্থিত না থাকায় দায়িত্বপ্রাপ্ত বিচারক অতিরিক্ত জেরা ও দায়রা জজ চতুর্থ আদালত জানান ২০১৭ সালের ১ ডিসেম্বর আসাদুল ইসলামকে পালাতক আসামি হিসেবে পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ হয়েছে। এদিকে জামিনে থাকা আসাদুল ইসলাম গত ১৬ মে আদালতে নিয়মিত হাজিরা দিতে গেলে জামিন নামঞ্জুর করে জেল হাজতে পাঠানোর নির্দেশ দেন। এ ব্যাপারে সোমবার দুপুরে এড. মাহাবুবুর রহমান জানান, অফিস সহকারী কর্তৃক বিচারিক নথির বি-ফাইল (যাহাতে আসামির জামিননামা রহিয়াছে) মূলনথির সাথে সংযুক্ত না করার কারণে আসামি সিডব্লিউ মূলে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।

SHARE