নেপালে বিমান দুর্ঘটনায় নিহত সহকারী পাইলটের বাড়ি শার্শায় শোকের মাতম

এম এ রহিম, বেনাপোল॥ নেপালে বিমান দুর্ঘটনায় নিহত সহকারী পাইটল পৃথুলা রশিদের (২৪) গ্রামের বাড়ি যশোরের শার্শা ইলিশপুর গ্রামে কান্নার রোল পড়েছে। স্বজনদের মাঝে চলছে আহাজারি। গ্রামের রতœ হিসেবে পরিচিত এই তরুণীর মৃত্যু যেন আকাশ ভেঙ্গে মাথায় পড়েছে।
পৃথুলা রশিদ ওই গ্রামের কাজল হোসেন ও মা রাফেজা বেগমের একমাত্র সন্তান। তার মাতা একটি এনজিতে চাকরি করেন।
পৃথুলা লন্ডন গ্রেজ এন্টারন্যাশন্যাল থেকে ও এবং এ লেবেল অর্জনকারী ঢাকা নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এমবিএ এবং আমিব্যাং এভিয়েশন থেকে উড্ডয়ন ডিগ্রি নিয়ে ২০১৬ সালের জুলাইয়ে অফিসার পদে সহকারী পাইলট হিসাবে ইউএস বাংলা ইয়ারলাইন্সের যোগদান করেন। চাকরির কারণে তাকে গ্রামের বাড়ি আসা হতো না। তবে এবার মার্চের শেষে বা এপ্রিলের দিকে তার বাড়ি আসার কথা ছিল।
এমনটি জানিয়ে হাউমাউ করে কেঁদে উঠেন চাচা কামাল হোসেন ও সহিদুল আলাল।
তারা বলেন, আমাদের সব স্বপ্ন ভেঙ্গে গেছে। ও শুধু আমাদের সম্পদ না। দেশের সম্পদ ছিল।
চাচাতো বোন উ¤েম ইলমা ও উম্মে জান্নাতি তারা কাঁদতে কাঁদতে যেন ভাষা হারিয়ে ফেলেছেন। তারা বলেন, আপুর গ্রামের বাড়িতে আম খেতে আসা কথার ছিল। কিন্তু আর আসা হলো না। ছুটিতে এসে ঘুরে ফিরে বেড়াবে এমন কথা বলেছিলেন। আমরা অপেক্ষা করছিলাম। কিন্তু তিনি আর কোন দিন আসবেন না।

SHARE