দু’জনার দু’টি পথ দু’টি দিকে গেলো বেঁকে

সমাজের কথা ডেস্ক॥ তারকা জুটি শাকিব খান ও অপু বিশ্বাসের আনুষ্ঠানিকভাবে বিচ্ছেদ ঘটলো সোমবার।
সিটি কর্পোরেশনের অঞ্চল ৩-এর প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো. হেমায়েত হোসেন বলেন, “নিয়ম অনুযায়ী বিচ্ছেদের আবেদেনের পর বিষয়টি মিটমাট করার জন্য তিন দিন আমরা উভয় পক্ষকে সালিশে ডেকেছিলাম।
আজ চূড়ান্ত সালিশে কোনো পক্ষই হাজির হননি। তাই নিয়মমাফিক এ মামলার নিষ্পত্তি হয়েছে।”
মুসলিম পারিবারিক আইন অনুযায়ী বিচ্ছেদের নোটিশ পাঠানোর ৯০ দিনের মধ্যে মীমাংসা না হলে বিচ্ছেদ কার্যকর হয়।
গত বছরের ২২ নভেম্বর অপু বিশ্বাসের ঠিকানায় তালাকনামা পাঠিয়েছিলেন শাকিব খান। তালাকনামা পাওয়ার পর এ বিচ্ছেদ ‘মানেন না’ বলে দাবি করে আসছিলেন অপু বিশ্বাস।
চলতি মাসের শুরুতে অপু বিশ্বাস নিজের সিদ্ধান্ত থেকে সরে এসে গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন, বিচ্ছেদের সিদ্ধান্ত তিনি মেনে নিয়েছেন।
সে কারণে ১২ ফেব্রুয়ারি সিটি কর্পোরেশনে ডাকা দ্বিতীয় সালিশে অনুপস্থিত ছিলেন অপু বিশ্বাস। এর আগে ১৫ জানুয়ারি ডাকা প্রথম সালিশে অপু উপস্থিত থাকলেও শাকিব ছিলেন না।
বিচ্ছেদ কার্যকরের পরে তাদের একমাত্র সন্তান আব্রাম খান জয়ের ভরণ-পোষণের যাবতীয় দায়িত্ব নেবেন শাকিব।
শাকিবের আইনজীবী শেখ সিরাজুল ইসলাম বলেন, “উনি ছেলের মঙ্গলের জন্য সবকিছুই করবেন। প্রতিমাসে এক লক্ষ টাকা দিয়ে যাচ্ছেন ছেলের ভরণ-পোষনের জন্য। আরও যখন যা টাকা লাগে শাকিব তা দেবেন।”
শাকিব-অপুর বিয়ে হয় ২০০৮ সালে। ২০১৬ সালের ২৭ সেপ্টেম্বর কলকাতায় তাদের পুত্রসন্তানের জন্ম হয়। গত বছর এপ্রিলে সন্তান কোলে টেলিভিশন লাইভে এসে সেই খবর প্রকাশ করলে ঘটনা ভিন্ন দিকে মোড় নেয়। বনিবনা না হওয়ায় বিয়ের ১০ বছরের মধ্যেই বিচ্ছেদ ঘটলো এই ঢালিউড জুটির।

SHARE