হলুদে সবুজে মন মাতিয়ে যশোরে ঋতুরাজ বন্দনা

নিজস্ব প্রতিবেদক॥ ফাল্গুনের পড়ন্ত বিকেল। শিরীষ পাতার ফাঁক গলে আসা হলদে রঙের রোদ্দুরে ঝলমল করছে যশোর পৌর উদ্যানের উন্মুক্ত মঞ্চ। রক্তরাঙা পলাশ ফুলের ব্যাকগ্রাউন্ড আর লাল হলুদের বাসন্তি কাপড়ে সজ্জিত মঞ্চে একদল কিশোর কিশোরী। মঞ্চের চারপাশে উদীচীর বসন্ত বরণ উৎসবে আসা হলুদিয়া সাজে নারী পুরুষের উপচে পড়া ভিড়। চারটের কিছু সময় পর সমবেত কন্ঠে সুর তুলল ‘বসন্তে ফুল গাথল আমার জয়ের মালা, পড়ল প্রাণে দখিন হাওয়া, আগুন জ্বালা…..। সমবেত কন্ঠের এই গানটি পরিবেশনের মধ্য দিয়ে শুর হয় যশোর উদীচীর বসন্ত বরণ উৎসব। ‘মিলব আবার সবার সাথে, ফাল্গুনের এই ফুলে ফুলে’ মর্মবাণীকে উপজীব্য করে আয়োজিত উদীচীর এবারের বসন্ত উৎসবে গানের পাশাপাশি ছিল কবিতা ও নাচের পরিবেশনা। এ সময় অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন আবৃত্তি শিল্পী কাজী শাহেদ নওয়াজ। এদিকে বিকেল ৪ টা ৪৫ মিনিটে শহরের মুন্শি মেহেরুল্লাহ ময়দানের (টাউন হল) শতাব্দীর বটতলের রওশন আলী মঞ্চে বসন্ত বন্দনায় মাতে পুনশ্চ যশোর। সমবেত কন্ঠে ‘ওরে গৃহবাসী খোল দ্বার খোল’ পরিবেশনের মধ্য দিয়ে আরম্ভ হয় পুনশ্চের ফাল্গুনী আয়োজন। একক ও সমবেত কন্ঠের গান ও নৃত্য পরিবেশনার মধ্য দিয়ে শেষ হয় পুনশ্চের বসন্ত উৎসব। এছাড়া বিকেল ৫ টায় যশোর জেলা পরিষদ চত্বরে ছিল চাঁদের হাটের বসন্ত বরণ অনুষ্ঠান। নেচে, গেয়ে বাঙালির চিরায়ত বর্নিল বসন্তবরণ উৎসব উদ্যাপন করেন শিল্পীরা। এদিকে সকালে পৌরপার্কে বসন্ত উৎসবের আয়োজন করে সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠন ভৈরব। উৎসবে শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন যশোরের জেলা প্রশাসক আশরাফ উদ্দিন ও পৌর মেয়র জহিরুল ইসলাম চাকলাদার রেন্টু। এছাড়া সরকারি মাইকেল মধুসূদন (এমএম কলেজ) কলেজের চেতনায় চিরঞ্জীব ভাস্বকর্যের পাদদেশে বিবর্তন বসন্ত বরণ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে।

SHARE