বোমা ও বোমা তৈরি সরঞ্জামসহ এক নেতা আটক যশোর বিএনপির ২১ জনের নামে মামলা

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ যশোরে ১০টি বোমা ও বোমা তৈরির সরঞ্জাম এবং বাঁশের লাঠিসহ নাজমুল হুদা নামে এক বিএনপি নেতাকে আটক করেছে পুলিশ। মঙ্গলবার দুপুরে শহরের মণিহার এলাকার পরিবহন সংস্থা শ্রমিক সমিতির অফিসের সামনে থেকে কোতোয়ালি মডেল থানা পুলিশ তাকে আটক করে। এ ঘটনায় পুলিশ বাদী হয়ে পলাতক দেখিয়ে জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদকসহ ২১ জনের নাম উল্লেখপূর্বক অজ্ঞাতনামা আরো ২০/২৫ জনের বিরুদ্ধে মামলায় করা হয়েছে। তবে অর্থ যোগানদাতা হিসেবে এ মামলায় আরো চারজনের নাম উল্লেখ করা হয়েছে।
পলাতক আসামিরা হলেন, জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট সৈয়দ সাবেরুল হক সাবু। এমামলায় রেলগেটের শাহিন, বারান্দী মোল্যাপাড়া আমতলার মোজাম, আব্দুর রহমান, বারান্দীপাড়া কলোনীর টেনিয়া, আরএন রোডের সোহাগ, আতাউল্লাহ, নলডাঙ্গা রোডের মিন্টু, মনিরুজ্জামান মাসুম, ওয়াশিংটন, নীলঞ্জ সাহাপাড়ার বিপুল, বারান্দীপাড়া কদমতলার পটল, শহরতলীর বালিয়াডাঙ্গার গণি ও ইব্রাহিম, এইচএমএম রোডের আলমগীর বাবু, ফয়সাল, লোন অফিসপাড়ার আকমাম, ঘোপ সেন্ট্রাল রোডের রুহুল কুদ্দুস মুকুল ওরফে ডিস মুকুল, হাজী আব্দুল করিম লেনের আলী আকবর ও সদর উপজেলার ভায়না গ্রামের কামরুজ্জামান বিদ্যুতকে আসামি করা হয়েছে।
এ মামলায় বিএনপি নেতা রফিকুল ইসলাম মুল্লুক চাঁদ তার ভাই রাজিবুল ইসলাম চৌধুরী রিপন, আরএন রোডের সোহাগ এবং চারখাম্বা রাসেল চত্বর এলাকার সাজেদুর রহমান সুজাকে অর্থ যোগানদাতা হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে।
মামলার বাদী কোতোয়ালি থানার এসআই তারেক মোহাম্মদ নাহিয়ান জানিয়েছেন, মঙ্গলবার দুপুর ২টার দিকে আটক ও পলাতক আসামিরা শহরের মণিহার এলাকার পরিবহন সংস্থা শ্রমিক সমিতির অফিসের সামনে নাশকতার উদ্দেশে লাঠি, বোমাসহ বিভিন্ন ধরনের অস্ত্রশস্ত্রসহ একত্রিত হয়। সংবাদ পেয়ে সেখানে গেলে আসামিরা পুলিশকে লক্ষ করে ২/৩টি বোমার বিস্ফোরণ ঘটাইয়া পালিয়ে চলে যায়। এসময় নাজমুল হুদাকে আটক করা হয়। একই সাথে সেখান থেকে ১০টি বোমা, বিস্ফোরিত বোমার অংশ বাঁশের লাঠি এবং কাঁচের বোতল উদ্ধার করা হয়।