টি-টোয়েন্টির নেতৃত্বেও মাহমুদউল্লাহ

সমাজের কথা ডেস্ক॥ অধিনায়কের অনুস্থিতিতে স্বয়ংক্রিয়ভাবেই নেতৃত্ব পাওয়ার কথা সহ-অধিনায়কের। সহকারীর পদটি রাখাই হয় সেজন্য। তবে ধারা ধরে রাখার পথে হাঁটল না বিসিবি। বাংলাদেশ টি-টোয়েন্টি দলের সহ-অধিনায়ক তামিম ইকবাল হলেও চোট পাওয়া সাকিব আল হাসানের বদলে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে সিরিজে নেতৃত্ব দেবেন মাহমুদউল্লাহ।
সাকিবের অনুপস্থিতিতে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে টেস্ট সিরিজেও নেতৃত্ব দিয়েছেন মাহমুদউল্লাহ। তবে সেটি নিয়ে প্রশ্নের অবকাশ ছিল না। টেস্ট দলে সাকিবের সহকারী মাহমুদউল্লাহই। কিন্তু টি-টোয়েন্টির ক্ষেত্রে সহ-অধিনায়ককে বেছে নিল না বিসিবি।
গত ডিসেম্বরে যখন টেস্ট দলের নেতৃত্বে ফেরানো হলো সাকিবকে আর সহকারী করা হলো মাহমুদউল্লাহকে, সেই সংবাদ সম্মেলনেই বিসিবি প্রধান নাজমুল হাসান বলেছিলেন, “তামিম টি-টোয়েন্টির সহ-অধিনায়ক ছিল, সেখানেই থাকবে।” বোর্ড প্রধানের ওই ঘোষণার আগ পর্যন্ত টি-টোয়েন্টির কোনো সহ-অধিনায়কের নাম কখনও জানায়নি বিসিবি, তামিম নিজেও জানতেন না তিনি টি-টোয়েন্টির সহ-অধিনায়ক।
ঘটা করে তামিমকে সহ-অধিনায়ক ঘোষণার পর এখন তাকে নেতৃত্ব না দিয়ে মাহমুদউল্লাহকে অধিনায়ক করা জন্ম দিচ্ছে একটি প্রশ্নের, “সহ-অধিনায়ক পদটির মানে তাহলে কি?”
তামিমের ক্ষেত্রে এই উপেক্ষা এবারই প্রথম নয়। ২০১৪ সালে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি সিরিজের আগেও একই ঘটনা ঘটেছিল। তখনও সহ-অধিনায়ক ছিলেন তামিম। নিয়মিত অধিনায়ক মুশফিকুর রহিমের চোট পাওয়ার পর তামিমকে না দিয়ে নেতৃত্ব দেওয়া হয়েছিল মাশরাফি বিন মুর্তজাকে।
চোট পাওয়া সাকিবের বদলি হিসেবে এ দিন বাঁহাতি স্পিনার নাজমুল ইসলাম অপুর নামও জানিয়েছে বিসিবি। অপু অবশ্য আনুষ্ঠানিক ঘোষণার আগেই মঙ্গলবার অনুশীলন করেছেন দলের সঙ্গে।
ঘরোয়া ক্রিকেটে অনেক দিন থেকেই নিয়মিত পারফরমার অপু। তবে এবার জাতীয় দলে আসায় বড় ভূমিকা আছে গত বিপিএলে রংপুর রাইডার্সের হয়ে তার পারফরম্যান্সের। ১২ উইকেট নিয়েছিলেন ওভারপ্রতি মাত্র ৬.৫৩ রান দিয়ে।
২৬ বছর বয়সী এই স্পিনারকে দিয়ে ১৫ সদস্যের টি-টোয়েন্টি স্কোয়াডে নতুম মুখ ৬টি।
টি-টোয়েন্টির বাংলাদেশ দল: তামিম ইকবাল, সৌম্য সরকার, মুশফিকুর রহিম, মাহমুদউল্লাহ (অধিনায়ক), সাব্বির রহমান, মুস্তাফিজুর রহমান, রুবেল হোসেন, মোহাম্মদ সাইফ উদ্দিন, আবু হায়দার, আবু জায়েদ, আরিফুল হক, মেহেদি হাসান, জাকির হাসান, আফিফ হোসেন, নাজমুল ইসলাম অপু।