যুদ্ধবিমান বিধ্বস্তের পর সিরিয়ায় ইসরায়েলের ব্যাপক হামলা

সমাজের কথা ডেস্ক॥ সিরীয় সেনাবাহিনীর গোলার আঘাতে একটি ইসরায়েলি এফ-১৬ জঙ্গিবিমান বিধ্বস্ত হওয়ার পর সিরিয়ার আকাশ প্রতিরক্ষা ও দেশটিতে থাকা ইরানি লক্ষ্যস্থলগুলোতে ব্যাপক বিমান হামলা শুরু করেছে ইসরায়েল।

এতে দুপক্ষের মধ্যে বিদ্যমান উত্তেজনা ক্রমেই আরো তীব্রতর হয়ে উঠছে বলে জানিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স।

সিরিয়ার রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যম ইসরায়েলের পৃথক দুটি হামলা সম্পর্কে দুটি প্রতিবেদন করেছে।

এর প্রথমটিতে দেশটির এক সামরিক সূত্র জানিয়েছে, একটি সামরিক ঘাঁটির ওপর ইসরায়েলি ‘আগ্রাসনের’ জবাবে সিরীয় আকাশ প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা গুলি ছুড়েছে, এতে ‘একাধিক বিমানে গুলি লেগেছে’।

পরের প্রতিবেদনে সিরীয় রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যম বলেছে, আকাশ প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা দক্ষিণ সিরিয়ায় সামরিক অবস্থানের ওপর ইসরায়েলের নতুন একটি হামলার জবাব দিয়ে তা ব্যর্থ করে দিয়েছে।

শনিবার ইসরায়েলি সামরিক বাহিনী জানিয়েছে, এ দিন সকালে তাদের ভূখন্ডের ওপরে একটি ইরানি ড্রোন ওড়ার সময় একটি হেলিকপ্টার সেটিকে গুলি করে নামানোর পর তাদের জঙ্গিবিমানগুলোকে সিরিয়ায় পাঠানো হয়েছিল।

সেখানে ইরানি ড্রোন স্থাপনাগুলোতে অভিযান চালানোর সময় তাদের একটি এফ-১৬ জঙ্গিবিমান উত্তর ইসরায়েলে বিধ্বস্ত হয়েছে।

ইসরায়েল জানিয়েছে, সিরিয়ায় তাদের জঙ্গিবিমানগুলো গুলির মুখে পড়ে, তা সত্বেও তাদের একটি জঙ্গিবিমান কীভাবে ভূপাতিত হয়ে বিধ্বস্ত হয়েছে তা পরিষ্কার হয়নি।

“সিরিয়ায় ১২টি লক্ষ্যস্থলে হামলা চালানো হয়েছে, এর মধ্যে তিনটি আকাশ প্রতিরক্ষা ব্যাটারি ও চারটি ইরানি লক্ষ্যস্থল আছে যেগুলো সিরিয়ায় ইরানি সামরিক স্থাপনার অংশ ছিল।

“ওই হামলার সময় ইসরায়েলের দিকে বিমান বিধ্বংসী ক্ষেপণাস্ত্র ছোড়া হয়েছে, এতে উত্তর ইসরায়েলজুড়ে সতর্ক সংকেত বেজে ওঠে।”

ইসরায়েলি সামরিক মুখপাত্র জোনাথন কনরিকাস জানিয়েছেন, অভিযানে থাকা ‘বহু সংখ্যক’ ইসরায়েলি যুদ্ধবিমানকে লক্ষ্য করে ‘ব্যাপক বিমান বিধ্বংসী গোলা ছোড়া হয়েছে’, কিন্তু শুধু একটি বিমান ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

টেলিভিশনে সম্প্রচারিত ফুটেজে ইসরায়েলি এফ-১৬ বিমানটিকে উত্তর ইসরায়েলের হারডুফ গ্রামের কাছে একটি মাঠে বিধ্বস্ত অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখা গেছে।

স্বয়ংক্রিয়ভাবে বের হয়ে আসার সময় বিমানটির এক পাইলট আহত হয়েছেন বলে জানিয়েছে দেশটির সামরিক বাহিনী।

SHARE