সাতক্ষীরার স্বর্ণ চোরাচালানের হোতা শফিউল্লাহ মনি আটকের পর মুক্ত

আব্দুল জলিল, সাতক্ষীরা॥ আটকের ১২ ঘন্টা পর মুক্তি পেলেন সাতক্ষীরার স্বর্ন চোরাচালান সিন্ডিকেট প্রধান শেখ শফিউল্লাহ মনি। বুধবার রাত ১ টার দিকে তাকে সাতক্ষীরা গোয়েন্দা পুলিশের দফতর থেকে মুক্তি দেওয়া হয়। তবে মনি বলেন, যে মামলায় তিনি জামিনে ছিলেন তার কাগজপত্র দেখে পুলিশ তাকে ছেড়ে দিয়েছে।
এর আগে বুধবার দুপুর ১ টার দিকে শেখ শফিউল্লাহ মনিকে শহরের নারকেলতলাস্থ ডেরা থেকে পুলিশ তুলে নিয়ে যায়। মনি স্বর্ন ছাড়াও হেরোইন, ফেনসিডিল এবং বিভিন্ন ধরনের মাদক চোরাচালান এমনকি ভারতীয় অস্ত্র পাচার করে থাকেন বলে অভিযোগ রয়েছে। তার চোরাচালান সিন্ডিকেট নেটওয়ার্ক যশোরের বেনাপোল থেকে সাতক্ষীরার সুন্দরবন পর্যন্ত বিস্তৃত। শহর জুড়ে রয়েছে তার স্বর্ন পাচার বাহিনী। সম্প্রতি ঢাকার কেরানিগঞ্জে মনিবাহিনীর সদস্য উজ্জ্বল সোনা পাচার মামলায় পুলিশের হাতে আটক হয়েছে।
মনিকে গ্রেফতার এবং রাতেই তাকে ছেড়ে দেওয়ার বিষয়টি জানতে চাইলে পুলিশ বলেছে যে মামলায় তাকে আটক করা হয় সেই মামলায় তিনি জামিনে রয়েছেন। একই সাথে তার বিএনপি কানেকশন এবং নাশকতার অভিযোগ যাচাই বাছাই করে কাগজপত্র দেখে তার স্বজনদের কাছে তাকে জিম্মায় দেওয়া হয়। রাতে মিল বাজারের কুখ্যাত চোরাচালানি ও মনি সিন্ডিকেট সদস্য জাহাঙ্গির অপর এক সদস্যকে সাথে নিয়ে মনিকে গোয়েন্দা পুলিশ অফিস থেকে নিয়ে আসেন।
পুলিশ জানিয়েছে, সম্প্রতি মনি তার এক সময়ের চোরাচালান পার্টনার মিলন পালের সাথে একটি বাড়ি নিয়ে বিরোধে জড়িয়ে পড়ে। এ ঘটনায় মিলন পাল ও শেখ শফিউল্লাহ মনি পরস্পরকে গোল্ড স্মাগলার হিসাবে আখ্যায়িত করে সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবে পরপর তিনটি সংবাদ সম্মেলন করেন। কয়েকটি মামলাও হয়। এ বিষয় নিয়ে পত্রপত্রিকায় রিপোর্ট ছাপা হলে মনির অন্ধকার জগতের অনেক খবর উঠে আসে। এতে প্রশাসনের টনক নড়ে। এর পরপরই গ্রেফতার হন তিনি। পুলিশ আরও জানিয়েছে, মনি বিএনপি কর্মী। বর্তমান সময়ে তিনি নাশকতার সাথেও জড়িয়ে পড়েছেন।