মনুষ্য সৃষ্ট রোহিঙ্গা সংকটের সুরাহা সম্ভব: বরিস জনসন

সমাজের কথা ডেস্ক॥ রোহিঙ্গা সমস্যাকে ‘মনুষ্য সৃষ্ট বিপর্যয়’ আখ্যায়িত করে ব্রিটিশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী বরিস জনসন বলেছেন, সংশ্লিষ্টদের ‘রাজনৈতিক সদিচ্ছা, সহনশীলতা ও সহযোগিতার’ মাধ্যমে এই সংকটের অবসান হতে পারে।
শনিবার বিকালে ঢাকায় পৌঁছে এক বিবৃতিতে একথা বলেন তিনি।

বরিস জনসন বাংলাদেশের পর মিয়ানমার এবং তারপর থাইল্যান্ড সফর করবেন বলে ব্রিটিশ পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছে।

বিবৃতিতে ব্রিটিশ পররাষ্ট্রমন্ত্রীকে উদ্ধৃত করে বলা হয়েছে, “এই মানুষগুলো যে ভয়াবহতার মধ্য দিয়ে গেছে সেই অভিজ্ঞতা আমি নিজ কানে শুনতে এবং তাদের অবস্থা স্বচক্ষে দেখতে চাই। এই মানবিক সংকটের সুরাহায় সবাই মিলে কীভাবে কাজ করা যায় সে বিষয়ে আমি স্টেট কাউন্সেলর অং সান সু চি ও অন্যান্য আঞ্চলিক নেতাদের সঙ্গে কথা বলব।

রাখাইনে সহিংসতার মুখে বাংলাদেশে পালিয়ে এসেছে সাড়ে ছয় লাখের বেশি রোহিঙ্গা রাখাইনে সহিংসতার মুখে বাংলাদেশে পালিয়ে এসেছে সাড়ে ছয় লাখের বেশি রোহিঙ্গা “রোহিঙ্গাদের দুর্দশা এবং তাদের যে দুঃখ-কষ্ট সইতে হয়েছে তা আমাদের সময়ের সবচেয়ে বেদনাদায়ক মানবিক বিপর্যয়গুলোর অন্যতম। এটা একটা মনুষ্য সৃষ্ট বিপর্যয় যা সংশ্লিষ্ট সব পক্ষের সঠিক রাজনৈতিক সদিচ্ছা, সহনশীলতা ও সহযোগিতার মাধ্যমে সমাধান সম্ভব।”
মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে কয়েক দশক ধরে জাতিগত নিপীড়নের শিকার রোহিঙ্গাদের ওপর গত ২৮ অগাস্ট থেকে নতুন করে দমন অভিযান শুরু করে সেদেশের সেনাবাহিনী। সেখানে নিধনযজ্ঞের মুখে এই কয় মাসে পালিয়ে বাংলাদেশে এসে আশ্রয় নিয়েছে সাড়ে ছয় লাখের বেশি রোহিঙ্গা।

এর আগে বিভিন্ন সময়ে সহিংতার মুখে রাখাইন থেকে পালিয়ে আসা আরও চার লাখের মতো রোহিঙ্গা বাংলাদেশের ঊপকূলীয় জেলা কক্সবাজারে আশ্রয় নিয়ে আছে।

মিয়ানমারে রোহিঙ্গা গণহত্যা বন্ধের দাবিতে ব্রাসেলসে ইউরোপীয় ইউনিয়নের সদর দপ্তরের সামনে নভেম্বরে প্রতিবাদ কর্মসূচিতে প্রবাসী বাংলাদেশিরা। ইউরোপের বিভিন্ন দেশের নাগরিকরাও এ কর্মসূচিতে অংশ নেন। ছবি: মোস্তাফিজুর রহমান মিয়ানমারে রোহিঙ্গা গণহত্যা বন্ধের দাবিতে ব্রাসেলসে ইউরোপীয় ইউনিয়নের সদর দপ্তরের সামনে নভেম্বরে প্রতিবাদ কর্মসূচিতে প্রবাসী বাংলাদেশিরা। ইউরোপের বিভিন্ন দেশের নাগরিকরাও এ কর্মসূচিতে অংশ নেন। ছবি: মোস্তাফিজুর রহমান বরিস জনসন শনিবার কক্সবাজারে রোহিঙ্গা আশ্রয় শিবিরে যাবেন তাদের কষ্টের কথা তাদের মুখ থেকে শুনতে। সেখান থেকে ফিরে ওই দিন রাতেই তিনি মিয়ানমারের উদ্দেশ্যে রওনা হবেন।
গত এক দশকে প্রথম কোনো ব্রিটিশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিসেবে রাষ্ট্রীয় সফরে বাংলাদেশে এলেন বরিস জনসন। ঢাকা পৌঁছে সন্ধ্যায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে দেখা করেছেন তিনি। পরে পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলীর সঙ্গে বৈঠকে বসার কথা রয়েছে তার।

SHARE